ইসলামের ইতিহাসের সময়রেখা

৬ষ্ঠ শতাব্দী (৫০০–৬০০)

  • ৫৪৫: মুহাম্মদ (সা) এর পিতা আবদুল্লাহর জন্ম (আনুমানিক তারিখ)
  • ৫৭০: মুহাম্মদ (সা) এর জন্ম এবং তার পিতা আবদুল্লাহর মৃত্যু | হাতির বছর। ইয়েমেনের ভাইসরয় আবরাহার মক্কার আক্রমণ, তার পশ্চাদপসরণ।
  • ৫৭৩: আবু বকরের জন্ম
  • ৫৭৬: মহানবী (সা।) তাঁর মায়ের সাথে মদীনায় গেছেন এবং তাঁর মা আমিনার মৃত্যু
  • ৫৭৬: উসমানের জন্ম
  • ৫৭৮: মুহাম্মদ (সা) এর দাদা আবদুল মুত্তালিবের মৃত্যু
  • ৫৮২: উমরের জন্ম
  • ৫৮২: চাচা আবু তালিবের সাথে মুহাম্মদ এর সিরিয়া যাত্রা। পথিমধ্যে বহিরা নামক খ্রিষ্টান সন্ন্যাসীর সাক্ষাত লাভ।.বহিরা  হচ্ছেন সেই খ্রীষ্টান সন্ন্যাসী যিনি মুহাম্মদ (সা) এর নবুওয়ত সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন |
  • ৫৮৬: মহানবী (সা।) ফিজারের যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন।
  • ৫৯১: মুহাম্মদ (সা) “হিলফুল ফুদুল” এর একজন সক্রিয় সদস্য হয়েছিলেন, যেটি দুর্দশাগ্রস্থদের উপশমের জন্য একটি লীগ।
  • ৫৯৪: মুহাম্মদ (সা) খাদিজা (র)  জন্য কাজ শুরু করেন। তিনি খাদিজার বাণিজ্যিক কাফেলা নিয়ে সিরিয়া যান এবং ব্যবসা শেষে ফিরে আসেন।
  • ৫৯৫: মুহাম্মদ (সা) ও খাদিজার বিয়ে
  • ৫৯৯: মুহাম্মদ (সা) এর চাচাত ভাই ও পরবর্তীকালে জামাতা আলি (র) এর জন্ম।

৭ম শতাব্দী (৬০১ – ৭০০)

এই শতাব্দী ২৩ হিজরিপূর্ব থেকে ৮১ হিজরি পর্যন্ত বিস্তৃত।

  • ৬০৫: মুহাম্মদ (সা) এর কন্যা ফাতিমার জন্ম। তিনি আলি ইবনে আবি তালিবের স্ত্রী। মুহাম্মদ (সা) এর বংশধররা ফাতিমার বংশধারা থেকে এসেছেন।
  • ৬০৫: মুহাম্মদ (সা) কাবা পুনর্নির্মাণে কাবা শরীফে কালো পাথর স্থাপন সম্পর্কে কুরাইশদের মধ্যে বিবাদে সালিশ করেছিলেন।
  • ৬১০: হেরা গুহায় প্রথম কুরআন অবতরণ। মহানবী হলেন আল্লাহর বার্তা বাহক। খাদিজা কর্তৃক প্রথম ইসলাম গ্রহণ।
  • ৬১৩: সাফা পর্বতে সাধারণের উদ্দেশ্যে ইসলামের আহ্বান।
  • ৬১৪: হাশিমীদের ইসলাম গ্রহণের আমন্ত্রণ।
  • ৬১৫: কুরাইশ নেতৃবৃন্দের হাতে মুসলিমদের নির্যাতন। মুসলিমদের একটি দল আবিসিনিয়ায় হিজরত করে। উমর ও হামজার ইসলাম গ্রহণ।
  • ৬১৬: আবিসিনিয়ায় দ্বিতীয় হিজরত।
  • ৬১৭: কুরাইশ কর্তৃক মুহাম্মদ (সা) ও হাশিমিদের বয়কট।
  • ৬১৯: বয়কট প্রত্যাহার। আবু তালিব ও খাদিজার মৃত্যু, মুসলিমদের জন্য দুঃখের বছর।
  • ৬২০: মুহাম্মদ (সা) এর তাইফ সফর, মিরাজের রাতে ঊর্ধ্বাকাশে গমন।
  • ৬২১: শাহাদাহ পাঠ করে ইসলাম গ্রহণের পরে, প্রতিনিধিদল নিজেদের এবং তাদের সহ-নাগরিকদেরকে তাদের সম্প্রদায়ের মধ্যে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে গ্রহণ করার এবং শারীরিকভাবে তাকে তাদের অন্যতম হিসাবে শারীরিক সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। এই অঙ্গীকারটি “আকাবার প্রথম বাইয়াত” হিসাবে পরিচিতি লাভ করে।
  • ৬২২: আকাবার দ্বিতীয় বাইয়াত। হিজড়া – মহানবী (সা।) মক্কাবাসীদের একটি হত্যার চেষ্টা থেকে রক্ষা পেয়ে ইয়াথ্রিবিতে যান, যাকে এখন মদিনাত আল-নবী (নবীর শহর) থেকে মদিনা বলা হয়। ইসলামি বর্ষপঞ্জীর প্রথম বছর।
  • ৬২২: মদিনার সনদ স্বাক্ষরিত। প্রথম ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত।
  • ৬২৩: নাখলা অভিযান
  • ৬২৪: বদরের যুদ্ধ সংঘটিত। মদিনা থেকে বনু কাইনুকা গোত্রের বহিষ্কার। জেরুজালেম থেকে মক্কার দিকে নামাজের দিক পরিবর্তন।
  • ৬২৫: উহুদের যুদ্ধ সংঘটিত। মদিনা থেকে বনু নাদির গোত্রের বহিষ্কার।
  • ৬২৫: হাসান ইবনে আলির জন্ম।
  • ৬২৬: হুসাইন ইবনে আলির জন্ম।
  • ৬২৭: খন্দকের যুদ্ধ সংঘটিত। বনু কুরাইজা অভিযান।
  • ৬২৮: হুদায়বিয়ার সন্ধি স্বাক্ষরিত। খায়বারের যুদ্ধ সংঘটিত। বিভিন্ন রাষ্ট্রপ্রধানদের নিকট মুহাম্মদ (সা) এর পত্রপ্রেরণ।
  • ৬২৯: মুহাম্মদ (সা) এর উমরা পালন। মুতার যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৬৩০: মক্কা বিজয়। হুনাইনের যুদ্ধ, আওতাসের যুদ্ধ, তাইফ অবরোধ।
  • ৬৩১: তাবুক ও গাসানিদের বিরুদ্ধে অভিযান।
  • ৬৩১ বা ৬৩২, সাকিফ গোত্রের ইসলামগ্রহণ।
  • ৬৩২: বিদায় হজ্জ।
  • ৬৩২: মুহাম্মদ (সা) এর মৃত্যু। ফাতিমার মৃত্যু। আবু বকর খলিফা হিসেবে নির্বাচিত হন। যু কিসসার যুদ্ধ, যু আবরাকের যুদ্ধ, বুজাখার যুদ্ধ, জাফারের যুদ্ধ, নাকরার যুদ্ধ সংঘটিত। বনি তামিম ও মুসাইলিমার বিরুদ্ধে অভিযান।
  • ৬৩৩: বাহরাইন, ওমান, ইয়েমেন ও হাদরামাওত অভিযান। ইরাকে অভিযান। কাজিমার যুদ্ধ, মাজারের যুদ্ধ, ওয়ালাজার যুদ্ধ, উলাইসের যুদ্ধ, হিরার যুদ্ধ, আল-আনবারের যুদ্ধ, আইন আল-তামিরের যুদ্ধ, দাওমাত আল-জান্দালের যুদ্ধ, ফিরাজের যুদ্ধ।
  • ৬৩৪: বুসরার যুদ্ধ, দামেস্কের যুদ্ধ, আজনাদায়নের যুদ্ধ সংঘটিত। আবু বকরের মৃত্যু। উমর ইবনুল খাত্তাব কর্তৃক খিলাফতের দায়িত্বগ্রহণ। নামারাকের যুদ্ধ, সাকাতিয়ার যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৬৩৫: সেতুর যুদ্ধ, বুওয়াইবের যুদ্ধ, ফাহলের যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৬৩৬: ইয়ারমুকের যুদ্ধ, কাদিসিয়ার যুদ্ধ, মাদাইন সালেহ বিজয়।
  • ৬৩৭: সিরিয়া বিজয়, জেরুজালেম বিজয়, জালুলার যুদ্ধ।
  • ৬৩৮: জাজিরা বিজয়।
  • ৬৩৯: খুজিস্তান বিজয়। মিশরের ভেতর অভিযান। ইমাসুয়াসের প্লেগের বিস্তার।
  • ৬৪০: মিশরে ব্যবিলনের যুদ্ধ।
  • ৬৪১: নাহাওয়ান্দের যুদ্ধ; আলেক্সান্দ্রিয়া বিজয়।
  • ৬৪২: মিশর বিজয়।
  • ৬৪৩: আজারবাইজান ও তাবারিস্তান বিজয়।
  • ৬৪৪: ফারস, কিরমান, সিস্তান, মাকরান ও খারান বিজয়। উমরের হত্যাকান্ড। উসমান কর্তৃক তৃতীয় খলিফা হিসেবে দায়িত্বগ্রহণ।
  • ৬৪৬: খোরাসান, আর্মেনিয়া ও এশিয়া মাইনরে অভিযান।
  • ৬৪৭: উত্তর আফ্রিকা অভিযান। সাইপ্রাস দ্বীপ বিজয়।
  • ৬৪৮: বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে অভিযান।
  • ৬৫০: আরব ও তুর্কিদের মধ্যে প্রথম সংঘর্ষ। খাজার শহর বালানজারের বাইরে আবদুর রহমান ইবনে রাবিয়াহ কর্তৃক পরিচালিত আরব বাহিনী খাজারদের হাতে পরাজিত।
  • ৬৫২: উসমানের শাসনের বিরুদ্ধ্বে অসন্তোষ।
  • ৬৫৫: বাইজেন্টাইনের বিরুদ্ধে নৌযুদ্ধ।
  • ৬৫৬: উসমান নিহত। আলি কর্তৃক চতুর্থ খলিফা হিসেবে দায়িত্বগ্রহণ। উটের যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৬৫৭: মদিনা থেকে কুফায় রাজধানী স্থানান্তর। সিফফিনের যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৬৫৮: নাহরাওয়ানের যুদ্ধ।
  • ৬৫৯: প্রথম মুয়াবিয়া কর্তৃক মিশর বিজয়।
  • ৬৬০: মুয়াবিয়ার কাছ থেকে আলি হেজাজ ও ইয়েমেন পুনরায় অধিকার করে নেন। মুয়াবিয়া দামেস্কে নিজেকে খলিফা ঘোষণা করেন।
  • ৬৬১: খারিজিদের হাতে আলি ইবনে আবি তালিব নিহত।
  • ৬৬২: খারিজি বিদ্রোহ।
  • ৬৬৬: মুয়াবিয়া ইবনে হুদাইজ কর্তৃক সিসিলি আক্রমণ।[৪] আবদুর রহমান ইবনে আবি বকর,[৫][৬] মুহাম্মদ ইবনে মাসলামা ও রামলাহ বিনতে আবি সুফিয়ানের মৃত্যু।
  • ৬৬৯: হাসান ইবনে আলি নিহত। আলি অনুসারীদের নিকট হুসাইন ইবনে আলি ইমাম হিসেবে গৃহিত।
  • ৬৭০ খ্রিষ্টাব্দে উকবা বিন নাফি তিউনিসিয়ার কাইরুয়ানে এটি নির্মাণ করেছিলেন।
  • ৬৭০: উত্তর আফ্রিকায় অভিযান। উকবা ইবনে নাফি কর্তৃক তিউনিসিয়ার কাইরুয়ান শহর প্রতিষ্ঠা।[৭] কাবুল বিজয়।
  • ৬৭২: রোডস দ্বীপ বিজয়। খোরাসানে অভিযান।
  • ৬৭৪: মুসলিমদের আমুদরিয়া অতিক্রম। বুখারা অধীনস্থ রাজ্য হয়।
  • ৬৭৬: পঞ্চম শিয়া ইমাম মুহাম্মদ আল-বাকিরের জন্মগ্রহণ।
  • ৬৭৭: সমরকন্দ ও তিরমিজ জয়। কনস্টান্টিনোপল অবরোধ।
  • ৬৮০: মুয়াবিয়ার মৃত্যু। প্রথম ইয়াজিদ খলিফা হন। কারবালার যুদ্ধ ও হুসাইন ইবনে আলির হত্যাকান্ড। আলি ইবনে হুসাইন আলির অনুসারীদের ইমাম হন।
  • ৬৮২: উত্তর আফ্রিকায় উকবা ইবনে নাফি আটলান্টিকের দিকে অগ্রসর এবং বিসক্রায় নিহত হন। মুসলিমরা কাইরুয়ান ত্যাগ করে বুরকায় ফিরে আসে।
  • ৬৮৩: ইয়াজিদের মৃত্যু। দ্বিতীয় মুয়াবিয়ার খলিফার দায়িত্বগ্রহণ।
  • ৬৮৪: আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়ের নিজেকে মক্কায় খলিফা ঘোষণা করেন। প্রথম মারওয়ান দামেস্কে খলিফা হন। মার্জ‌ রাহাতের যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৬৮৫: প্রথম মারওয়ানের মৃত্যু। আবদুল মালিক ইবনে মারওয়ান খলিফা হন। আইনুল ওয়াদার যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৬৮৬: আল-মুখতার কুফায় নিজেকে খলিফা ঘোষণা করেন।
  • ৬৮৭: মুখতার ও আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়েরের মধ্য কুফার যুদ্ধ সংঘটিত। মুখতার নিহত।
  • ৬৯১: দাইর আল-জালিকের যুদ্ধ। খলিফা আবদুল মালিকের নিকট কুফার পতন।
  • ৬৯২: মক্কার পতন। আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়েরের মৃত্যু। আবদুল মালিক একমাত্র খলিফা হন।
  • ৬৯৫: জাজিরা ও আহওয়াজে খারিজি বিদ্রোহ। কারুনের যুদ্ধ সংঘটিত। উত্তর আফ্রিকায় কাহিনার বিরুদ্ধে অভিযান। মুসলিমদের পুনরায় বুরকায় প্রত্যাবর্তন। মুসলিমদের মাওয়ারাননহর দিকে অগ্রসর ও মুসলিমদের হাতে কিশ অধিকার।
  • ৭০০: উত্তর আফ্রিকায় বার্বা‌রদের বিরুদ্ধে অভিযান। এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ বিশ্বে মুসলিম জনসংখ্যা সমগ্র জনসংখ্যার এক শতাংশ বৃদ্ধি পায়।

৮ম শতাব্দী (৭০১-৮০০ খ্রিষ্টাব্দ / ৮১-১৮৪ হিজরি)

  • ৭০১: ইরাকে ইবনে আল-আশআসের বিদ্রোহ, দাইর আল-জামাজিমের যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৭০৩: ষষ্ঠ শিয়া ইমাম জাফর আল-সাদিকের জন্ম।
  • ৭০৫: আবদুল মালিক ইবনে মারওয়ানের মৃত্যু। প্রথম আল-ওয়ালিদ কর্তৃক খলিফার দায়িত্বগ্রহণ।
  • ৭১১: তারিক বিন জিয়াদ কর্তৃক স্পেন এবং কুতাইবা ইবনে মুসলিম কর্তৃক মাওয়ারাননহর বিজয়।
  • ৭১২: মুহাম্মদ বিন কাসিম কর্তৃক সিন্ধু বিজয়।
  • ৭১৩: চতুর্থ শিয়া ইমাম আলি ইবনে হুসাইন নিহত। মুহাম্মদ আল-বাকির পঞ্চম শিয়া ইমাম হন। মুলতান বিজয়।
  • ৭১৫: প্রথম ওয়ালিদের মৃত্যু। সুলাইমান ইবনে আবদুল মালিক উমাইয়া খলিফা হন।
  • ৭১৭: কনস্টান্টিনোপলে দ্বিতীয় আরব অবরোধ। খলিফা সুলাইমানের মৃত্যু। দ্বিতীয় উমর খলিফা হন।
  • ৭১৮: কনস্টান্টিনোপলে দ্বিতীয় আরব অবরোধ সমাপ্ত।
  • ৭২০: দ্বিতীয় উমরের মৃত্যু। দ্বিতীয় ইয়াজিদ খলিফা হন।
  • ৭২১: কুরসুলের নেতৃত্বে মাওয়ারাননহরে প্রথম তুরগেশ আক্রমণ।
  • ৭২৪: দ্বিতীয় ইয়াজিদের মৃত্যু। হিশাম ইবনে আবদুল মালিক খলিফা হন। তুরগেশের কাছে মুসলিম ইবনে সাইদ আল-কিলাবির পরাজয়।
  • ৭২৫: ফ্রান্সে মুসলিমদের নিমস বিজয়।
  • ৭২৯: বাইকান্দের যুদ্ধে আশরাস ইবনে আবদুল্লাহ আল-সুলামির নেতৃত্ব খোরাসানি বাহিনী তুরগেশের বিরুদ্ধে স্বল্প সাফল্য লাভ করে এবং বুখারা পুনরুদ্ধার হয়। পিছু হটা তুরগেশ বাহিনী কামারজা অবরোধ করে।
  • ৭৩০: উত্তরপশ্চিম ইরানে খাজারদের আক্রমণ এবং মার্জ‌ আরদাবিলের যুদ্ধে উমাইয়া বাহিনীর পরাজয়। আরব গভর্নর আল-জাররাহ আল-হাকামি নিহত হন এবং সংক্ষিপ্তকালের জন্য শহর খাজারদের অধীনস্থ হয়।
  • ৭৩১: তুরগেশের বিরুদ্ধে গিরিপথের যুদ্ধে খোরাসানি আরব বাহিনী তীব্র ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়। বাড়তি সহায়তার জন্য ২০,০০০ ইরাকি সৈনিক প্রেরিত হয়।
  • ৭৩২: ফ্রান্সে টুর্সে‌র যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৭৩৪: আল-হারিস ইবনে সুরাইজের বিদ্রোহ।
  • ৭৩৫: আসাদ ইবনে আবদুল্লাহ আল-কারসির খোরাসান আগমন এবং আল-হারিসের বিদ্রোহ দমন।
  • ৭৩৭: ফ্রান্সের আভিগননে মুসলিমরা বাধাগ্রস্ত হয়।
  • ৭৩৭: হাজের তারখানের নেতৃত্বাধীন খাজার বাহিনীকে মারওয়ান ইবনে মুহাম্মদ পরাজিত করেন। আতিল অধিকৃত হয়।
  • ৭৩৭: খারিস্তানের যুদ্ধে আসাদ ইবনে আবদুল্লাহ আল-কারসি খোরাসানে তুরগেশ আক্রমণ প্রতিহত করেন।
  • ৭৪০: জায়েদ ইবনে আলির নেতৃত্বে জায়েদি বিদ্রোহ। উত্তর আফ্রিকায় বার্বা‌র বিদ্রোহ। আশরাফের যুদ্ধ সংঘটিত। বাইজেন্টাইনদের বিরুদ্ধে এক্রোইননের যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৭৪১: উত্তর আফ্রিকায় বাগদুরার যুদ্ধ।
  • ৭৪২: কাইরুয়ানের মুসলিম শাসন পুনপ্রতিষ্ঠা।
  • ৭৪৩: মুহাম্মদ আল-বাকির বিষপ্রয়োগে নিহত। জাফর আল-সাদিক শিয়া ইমাম হন। খলিফা হিশামের মৃত্যু ও দ্বিতীয় আল-ওয়ালিদের খিলাফত লাভ। ইয়াহিয়া ইবনে জাইদের নেতৃত্বে খোরাসানে শিয়া বিদ্রোহ।
  • ৭৪৪: দ্বিতীয় আল-ওয়ালিদ ক্ষমতাচ্যুত। তৃতীয় ইয়াজিদ কর্তৃক খিলাফত লাভ ও একই বছরে মৃত্যু। ইবরাহিম ইবনুল ওয়ালিদ কর্তৃক খিলাফভ লাভ এবং একই বছরে ক্ষমতাচ্যুত। আইন আল জুরের যুদ্ধ সংঘটিত। দ্বিতীয় মারওয়ান কর্তৃক খিলাফত লাভ।
  • ৭৪৫: সপ্তম শিয়া ইমাম মুসা আল-কাজিমের জন্ম (ইসমাইলি শিয়াদের মতে ইসমাইল ইবনে জাফর সপ্তম ইমাম)। খারিজিদের হাতে কুফা ও মসুল অধিকৃত।
  • ৭৪৬: রুপার থুথার যুদ্ধ সংঘটিত। কুফা ও মসুল দ্বিতীয় মারওয়ান কর্তৃক অধিকৃত।
  • ৭৪৭: খোরাসানে আবু মুসলিমের বিদ্রোহ।
  • ৭৪৮: রাইয়ের যুদ্ধ।
  • ৭৪৯: ইসফাহানের যুদ্ধ সংঘটিত। আব্বাসীয়দের হাতে কুফা অধিকার। আস-সাফাহ কুফায় প্রথম আব্বাসীয় খলিফা হন।
  • ৭৫০: জাবের যুদ্ধ সংঘটিত। দামেস্কের পতন। উমাইয়াদের পতন।
  • ৭৫১: আব্বাসীয়দের ওয়াসিত বিজয়। মন্ত্রী আবু সালামা নিহত।
  • ৭৫১: তালাসের যুদ্ধে আব্বাসীয় বাহিনী চীনের ট্যাং রাজবংশকে পরাজিত করে।
  • ৭৫৪: আস-সাফাহর মৃত্যু। আল-মনসুর কর্তৃক খিলাফত লাভ। আল-মনসুরের চাচা আবদুল্লাহ ইবনে আলির বিদ্রোহ।
  • ৭৫৫: আবু মুসলিম নিহত। খোরাসানে সুনবাদের বিদ্রোহ।
  • ৭৫৬: প্রথম আবদুর রহমান স্পেনে উমাইয়া রাষ্ট্র স্থাপন করেন।
  • ৭৫৮: রাস তারখানের অধীনে খাজার বাহিনীর আক্রমণ এবং সাময়িকভাবে আজারবাইজান ও আরান অধিকার।
  • ৭৫৯: আব্বাসীয়দের তাবারিস্তান বিজয়।
  • ৭৬২: মুহাম্মদ আল-নাফস আল-জাকারিয়ার বিদ্রোহ।
  • ৭৬৩: বাগদাদ প্রতিষ্ঠা। স্পেনে আব্বাসীয়দের পরাজয়।
  • ৭৬৫: জাফর আল-সাদিক বিষপ্রয়োগের ফলে নিহত। মুসা আল-কাজিম পরবর্তী ইমাম হন। অষ্টম ইমাম আলি আল-রিদার জন্মগ্রহণ।
  • ৭৬৮: নেস্টরিয়ান খ্রিষ্টানদের কাছ থেকে মধ্য এশিয়ার সাইরাম শহর অধিকার।
  • ৭৬৭: ইবনে মাদরার কর্তৃক সিজিলমাসায় খারিজি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা।
  • ৭৭২: উত্তর আফ্রিকায় জানবির যুদ্ধ সংঘটিত। মরক্কোতে রুস্তমি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা।
  • ৭৭৫: আব্বাসীয় খলিফা আল-মনসুরের মৃত্যু। আল-মাহদির খিলাফত লাভ।
  • ৭৭৭: স্পেনে সারাগোসা অবরোধ।
  • ৭৮২: হারুনুর রশিদ কর্তৃক বাইজেন্টাইনদের বিরুদ্ধে অভিযানে নেতৃত্ব দান। অভিযান কালকেদোন পর্যন্ত পৌছায়।
  • ৭৮৫: খলিফা মাহদির মৃত্যু। আল-হাদির খিলাফত লাভ।।.
  • ৭৮৬: মক্কায় আলিপন্থিদের বিদ্রোহ। ফাখের যুদ্ধে বিদ্রোহ দমন।
  • ৭৮৬: খলিফা হাদির মৃত্যু। হারুনুর রশিদের খিলাফত লাভ।
  • ৭৮৮: মাগরেবে ইদ্রিসি রাজবংশের প্রতিষ্ঠা। স্পেনে প্রথম আবদুর রহমানের মৃত্যু এবং প্রথম হিশামের ক্ষমতালাভ।
  • ৭৯২: দক্ষিণ ফ্রান্স আক্রমণ।
  • ৭৯৬: স্পেনে হিশামের মৃত্যু এবং প্রথম আল-হাকামের ক্ষমতালাভ।
  • ৭৯৯: খাজারদের একটি আক্রমণের পরাজয়।
  • ৮০০: মুসা আল-কাজিম বিষপ্রয়োগের ফলে নিহত হন। আলি আল-রিদা ইমাম হন। উত্তর আফ্রিকায় আগলাবি শাসন প্রতিষ্ঠিত।
  • এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ বিশ্বের মুসলিম জনসংখ্যা সমগ্র জনসংখ্যার ২% বৃদ্ধি পায়।

 

৯ম শতাব্দী (৮০১-৯০০ খ্রিষ্টাব্দ / ১৮৪-২৮৮ হিজরি)

  • ৮০৩: বারমাকিদের পতন। জাফর ইবনে ইয়াহিয়ার মৃত্যুদণ্ড।
  • ৮০৫: খোরাসানে রাফি ইবনুল লাইসের বিদ্রোহ শুরু।
  • ৮০৬: হারুনুর রশিদ কর্তৃক বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে অভিযানের নেতৃত্ব প্রদান।
  • ৮০৯: হারুনুর রশিদের মৃত্যু। আল-আমিনের খিলাফত লাভ।
  • ৮১০: ৯ম শিয়া ইমাম মুহাম্মদ আল-জাওয়াদের জন্ম।
  • ৮১১: আব্বাসীয় গৃহযুদ্ধ: পারস্যে রাইয়ের যুদ্ধ।
  • ৮১২, আগস্ট: আব্বাসীয় গৃহযুদ্ধ: বাগদাদ অবরোধ শুরু।
  • ৮১৩, সেপ্টেম্বর: আব্বাসীয় গৃহযুদ্ধ: আল-মামুনের বাহিনী কর্তৃক শহর দখলের মাধ্যমে বাগদাদ অবরোধ সমাপ্ত। আল-আমিনের মৃত্যু।
  • ৮১৫: ইরাকে আবুল সারাইয়া আল-সিরির নেতৃত্ব শিয়া বিদ্রোহ। হারাসামা ইবনে আইয়ান কর্তৃক বিদ্রোহ স্তিমিত।
  • ৮১৬: মক্কায় শিয়া বিদ্রোহ; স্পেনে উমাইয়াদের হাতে করসিকা দ্বীপ দখল। হারাসামা ইবনে আইয়ানের মৃত্যুদণ্ড।
  • ৮১৮: মাশহাদে আলি আল-রিদার মৃত্যু। মুহাম্মদ আল-জাওয়াদ ইমাম হন। স্পেনে উমাইয়ারা ইবিজা, মাজোরকা ও সারডিনা দ্বীপ দখল করে।
  • ৮২০: তাহির ইবনে হুসাইন কর্তৃক খোরাসানে তাহিরি রাজবংশ প্রতিষ্ঠিত।
  • ৮২২: স্পেনে প্রথম আল-হাকামের মৃত্যু; দ্বিতীয় আবদুর রহমানের ক্ষমতালাভ।
  • ৮২৩: খোরাসানে তাহিরের মৃত্যু। তালহা ইবনে তাহিরের ক্ষমতালাভ ও ক্ষমতাচ্যুতি। আবদুল্লাহ ইবনে তাহির আল-খোরাসানির ক্ষমতালাভ।
  • ca. ৮২৫: ক্রিট আমিরাত স্থাপিত।
  • ৮২৭: ১০ম শিয়া ইমাম আলি আল-হাদির জন্ম। মামুন কর্তৃক মুতাজিলা মতবাদকে রাষ্ট্রীয় মতবাদ হিসেবে ঘোষণা। মুসলিমদের সিসিলি বিজয়ের সূচনা।
  • ৮৩৩: মামুনের মৃত্যু। আল-মুতাসিমের খিলাফত লাভ।
  • ৮৩৫: মুহাম্মদ আল-জাওয়াদ বিষপ্রয়োগের ফলে নিহত। আলি আল-হাদি ইমাম হন।
  • ৮৩৬: আল-মুতাসিম সামারায় রাজধানী স্থাপন করেন।
  • ৮৩৭: জাঠ বিদ্রোহ।
  • ৮৩৮: আজারবাইজানে বাবাক খুরামদিনের বিদ্রোহ দমন। আল-মুতাসিম কর্তৃক এমোরিয়াম আক্রমণ।
  • ৮৩৯: তাবারিস্তানে মাজইয়ারের বিদ্রোহ। মুসলিমদের দক্ষিণ ইটালি দখল। সিসিলিতে মেসিনা শহর জয়।
  • ৮৪২: আল-মুতাসিমের মৃত্যু। আল-ওয়াসিকের খিলাফত লাভ।
  • ৮৪৩: আরবদের বিদ্রোহ। ক্রিট আমিরাত পুনরায় অধিকারের জন্য বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের ব্যর্থ প্রচেষ্টা।
  • ৮৪৬: এশিয়া মাইনরে বাইজেন্টাইন ও আব্বাসীয়দের মধ্যে মাওরোপোটামোসের যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ৮৪৬: একাদশ শিয়া ইমাম হাসান আল-আসকারির জন্ম।
  • ৮৪৭: ওয়াসিকের মৃত্যু। আল-মুতাওয়াক্কিলের খিলাফত লাভ।
  • ৮৫০: আল-মুতাওয়াক্কিল কর্তৃক মুতাজিলা মতবাদ অপসারণ।
  • ৮৪৯: তাহিরি শাসক আবদুল্লাহ ইবনে তাহির আল-খোরাসানির মৃত্যু; তৃতীয় তাহিরের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৫২: স্পেনে দ্বিতীয় আবদুর রহমানের মৃত্যু। প্রথম মুহাম্মদের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৫৬: সিন্ধুতে হাবারি শাসন প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৫৮: আল-মুতাওয়াক্কিল কর্তৃক জাফারিয়া শহর প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৬০: সামান খুদা কর্তৃক মাওয়ারাননহরে সামানি শাসন প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৬১: আল-মুতাওয়াক্কিল নিহত; আল-মুনতাসিরের খিলাফত লাভ এবং সামারার নৈরাজ্য শুরু।
  • ৮৬২: মুনতাসির বিষপ্রয়োগের ফলে নিহত; আল-মুসতাইনের খিলাফত লাভ।
  • ৮৬৩: লালাকুনের যুদ্ধ মালাতিয়ার আমিরাতের ক্ষমতায় ভাঙন ধরায়। বাইজেন্টাইনদের পাল্টা আক্রমণের সূচনা।
  • ৮৬৪: তাবারিস্তানে হাসান ইবনে জায়েদ কর্তৃক জায়েদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৬৬: আব্বাসীয় গৃহযুদ্ধ: আল-মুসতাইনের সামারা থেকে পলায়ন, তার ক্ষমতাচ্যুতি ও আল-মুতাজের ক্ষমতা লাভ; আলির বংশধর মুহাম্মদ ইবনে ইউসুফ আল-উখাইদির কর্তৃক ইয়ামামায় স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৬৭: ইয়াকুব ইবনুল লাইস আল-সাফফার কর্তৃক সিস্তানে সাফারি শাসন প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৬৮: আলি আল-হাদি বিষপ্রয়োগের ফলে নিহত। হাসান আল-আসকারি ইমাম হন। শেষ ইমাম মুহাম্মদ আল-মাহদির জন্মলাভ। আহমাদ ইবনে তুলুন কর্তৃক মিশরে তুলুনি শাসন প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৬৯: আব্বাসীয় খলিফা মুতাজ ক্ষমতাত্যাগে বাধ্য হন; তার মৃত্যু এবং আল-মুহতাদির ক্ষমতালাভ। বসরায় জাঞ্জ বিদ্রোহ শুরু।
  • ৮৭০: মুহতাদির বিরুদ্ধের তুর্কিদের বিদ্রোহ; তার মৃত্যু এবং আল-মুতামিদের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৭১: ইতালির দ্বিতীয় লুইস কর্তৃক বারি দখল, বারি আমিরাতের সমাপ্তি।
  • ৮৭৩: তাহিরি রাজবংশের সমাপ্তি।
  • ৮৭৪: হাসান আল-আসকারি বিষপ্রয়োগের ফলে নিহত। মুহাম্মদ আল-মাহদি ইমাম হন। দক্ষিণ ইরাকে জাঞ্জ বিদ্রোহের সময় জানজি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা। সামানি শাসক আহমাদের মৃত্যু এবং প্রথম নাসেরের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৭৭: সিস্তানে ইয়াকুব ইবনুল লাইস আল-সাফফারের মৃত্যু। আমর বিন লাইসের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৭৮: মুসলিমদের হাতে সিরাকিউসের পতন।
  • ৮৮৩: জাঞ্জ বিদ্রোহের সমাপ্তি।
  • ৮৮৫: মিশরে আহমাদ ইবনে তুলুনের মৃত্যু। খামারাওয়াই ইবনে আহমাদ ইবনে তুলুনের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৮৬: স্পেনের উমাইয়া শাসক প্রথম মুহাম্মদের মৃত্যু, আল-মুনজিরের ক্ষমতালাভ। সিন্ধুর হাবারি শাসক আবদুল্লাহ ইবনে উমরের মৃত্যু।
  • ৮৮৮: স্পেনের উমাইয়া শাসন মুনজিরের মৃত্যু। আবদুল্লাহ ইবনে মুহাম্মদ আল-উমাউয়ির ক্ষমতালাভ।
  • ৮৯১: বাহরাইনে কারামাতি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা।
  • ৮৯২: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুতামিদের মৃত্যু। আল-মুতাদিদের খিলাফত লাভ। সামানি শাসক নাসেরের মৃত্যু, ইসমাইল সামানির ক্ষমতালাভ।
  • ৮৯৩: ইয়েমেনে আল-হাদি ইয়াহিয়া ইবনুল হুসাইন ইবনুল কাসিম কর্তৃক ইয়েমেনে জায়েদি ইমামত প্রতিষ্ঠিত।
  • ৮৯৪: রুস্তমি রাজ্য স্পেনের সামন্ত রাজ্যে পরিণত হয়।
  • ৮৯৬: খামারাওয়াই ইবনে আহমাদ ইবনে তুলুনের মৃত্যু; আবুল আসাকির জাইশের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৯৭: আবুল আসাকির জাইশ নিহত; হারুন ইবনে খামারাওয়াইয়ের ক্ষমতালাভ।
  • ৮৯৮: কারামাতিদের বসরা আক্রমণ।

এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ বিশ্বের মুসলিম জনসংখ্যা সমগ্র জনসংখ্যার ৩% বৃদ্ধি পায়।

 

১০ম শতাব্দী (৯০১–১০০০ খ্রিষ্টাব্দ / ২৮৮-৩৯১ হিজরি)

  • ৯০২: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুতাদিদের মৃত্যু; আল-মুকতাফি নতুন খলিফা হন। সাফারি শাসক আমর বিন লাইসের মৃত্যু। টাওরমিনার পতনের ফলে মুসলিমদের সিসিলি বিজয় সম্পন্ন।
  • ৯০৩: কারমাতি শাসক আবু সাইদ জান্নাবি নিহত; আবু তাহিরের ক্ষমতা লাভ।
  • ৯০৫: আবদুল্লাহ বিন হামদান মসুল এবং জাজিরায় হামদানি শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। মিশরে তুলুনি শাসনের অবসান।
  • ৯০৮: আব্বাসীয় খলিফা মুকতাফির মৃত্যু; আল-মুকতাদির নতুন খলিফা হন। সাফারি শাসনের সমাপ্তি। সামানি কর্তৃক সাফারি অঞ্চল একীভূত।
  • ৯০৯: সাইদ ইবনে হুসাইন তার সহযোগী আবদুল্লাহ ইবনে নুসাইন আল-শিইর সহায়তায় আগলাবিদের ক্ষমতাচ্যুত করেন এবং উত্তর আফ্রিকায় ফাতেমীয় শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। জিয়াদাতাল্লাহ অত্র অঞ্চল থেকে নির্বাসিত হন।
  • ৯১২: স্পেনে উমাইয়া শাসক আবদুল্লাহ ইবনে মুহাম্মদ আল-উমাউয়ির মৃত্যু; তৃতীয় আবদুর রহমান কর্তৃক ক্ষমতা গ্রহণ।
  • ৯১৩: সামানি শাসক আহমাদ সামানি নিহত; দ্বিতীয় নাসেরের ক্ষমতারোহণ।
  • ৯২৮: মারদাওয়িজ ইবনে জিয়ার কর্তৃক তাবারিস্তানে জিয়ারি শাসন প্রতিষ্ঠিত।
  • ৯২৯: কারমাতিরা মক্কা আক্রমণ করে এবং কাবার দেয়াল থেকে হাজরে আসওয়াদ খুলে নেয়। স্পেনে তৃতীয় আবদুর রহমান নিজেকে কর্ডোবার খলিফা ঘোষণা করেন।
  • ৯৩১: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুকতাদিরের ক্ষমতাচ্যুতি এবং পুনরায় ক্ষমতালাভ। কারমাতি শাসন আবু তাহিরের মৃত্যু; আবু মনসুরের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৩২: খলিফা মুকতাদিরের মৃত্যু; আল-কাহির নতুন খলিফা হন।
  • ৯৩২: কারাখানি খানাতের শাসক সালতুক বুগরা খানের ইসলামগ্রহণ।
  • ৯৩৪: আব্বাসীয় খলিফা আল-কাহির ক্ষমতাচ্যুত; আর-রাদি নতুন খলিফা হন। ফাতেমীয় খলিফা উবাইদাল্লাহর মৃত্যু; আল-কাইম নতুন খলিফা হন। ফারসে ইমাদ আল-দাওলা কর্তৃক বুইয়ি শাসন প্রতিষ্ঠা।
  • ৯৩৫: রুকন আল-দৌলা রাই অধিকার করে সেখানে বুইয়ি শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। জিয়ারি শাসক মারদাউয়িজ নিহত; উশমগিরের ক্ষমতা লাভ। হামদানি শাসক আবদুল্লাহ ইবনে হামদানের মৃত্যু, নাসির আল-দৌলার ক্ষমতালাভ।
  • ৯৩৬: অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ইবনে রাইক খলিফা আর-রাদির অধীনে আমির আল-উমারা হন।
  • ৯৩৮: অভ্যুত্থানের মাধ্যমে বাজকাম বাগদাদের ক্ষমতা দখল করেন।
  • ৯৪০: আব্বাসীয় খলিফা আর-রাদির মৃত্যু; আল-মুত্তাকি নতুন খলিফা হন।
  • ৯৪১: বাজকামের মৃত্যু, কুরতাকিন কর্তৃক ক্ষমতা দখল।
  • ৯৪২: ইবনে রাইক পুনরায় বাগদাদের ক্ষমতা দখল করেন।
  • ৯৪৩: আল-বারিদি ক্ষমতা দখল করেন। হামদানিদের কাছে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন। নাসির আল-দৌলার বাগদাদের ক্ষমতা দখল এবং খলিফার বাগদাদে প্রত্যাবর্তন। আমির আল-উমারা তুজুন কর্তৃক ক্ষমতা দখল এবং নাসির আল-দৌলার মসুল প্রত্যাবর্তন। সামানি শাসক দ্বিতীয় নাসেরের মৃত্যু; প্রথম নুহ ক্ষমতা লাভ করেন।
  • ৯৪৪: আল-মুত্তাকি ক্ষমতাচ্যুত। আল-মুসতাকফি নতুন খলিফা হন।
  • ৯৪৫: তুজুনের মৃত্যু। শিরজাদ আমির আল-উমারা হন। মুইজ আল-দৌলা ক্ষমতা দখল করে ইরাকে বুইয়ি রাজবংশের শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। আল-মুসতাকফি ক্ষমতাচ্যুত।
  • ৯৪৬: ফাতেমীয় খলিফা আল-কাইমের মৃত্যু। আল-মনসুর বিল্লাহ নতুন খলিফা হন। ইখশিদ শাসক মুহাম্মদ বিন তুগজের মৃত্যু এবং আবুল কাসিম উনগুরের ক্ষমতালাভ। সাইফ আল-দৌলা আলেপ্পোতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন।
  • ৯৪৯: ফারসের বুইয়ি শাহ ইমাদ আল-দৌলার মৃত্যু, আদুদ আল-দৌলার ক্ষমতালাভ।
  • ৯৫১: কারমাতিদের খুলে নেয়া হাজরে আসওয়াদ কাবায় স্থাপন করা হয়।
  • ৯৫৪: সামানি শাসক প্রথম নুহের মৃত্যু এবং আবদুল মালিকের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৬১: আবদুল মালিকের মৃত্যু, প্রথম মনসুরের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৬১: তুর্কি মামলুক আল্প তিগিন গজনভি শাসন প্রতিষ্ঠা করেন।
  • ৯৬১: স্পেনে উমাইয়া খলিফা তৃতীয় আবদুর রহমানের মৃত্যু; দ্বিতীয় আল-হাকাম নতুন খলিফা হন। ইখশিদ শাসক উনগুরের মৃত্যু, আবুল হাসান আলির ক্ষমতালাভ।
  • ৯৬৫: কারমাতি শাসক আবু মনসুরের মৃত্যু; হাসান আজমের ক্ষমতালাভ। ইখশিদি শাসক আবুল হাসান আলি নিহত; মালিক কাফুরের ক্ষমতা দখল। বাইজেন্টাইনদের হাতে তারসুসের পতন।
  • ৯৬৭: বুইয়ি শাসক সুলতান মুইজ আল-দাওলার মৃত্যু, ইজ্জ আল-দাওলার ক্ষমতালাভ। হামদানি শাসক সাইফ আল-দাওলার মৃত্যু।
  • ৯৬৮: ইখশিদি শাসক মালি কাফুরের মৃত্যু; আবুল ফাওয়ারিসের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৬৯: বাইজেন্টাইনরা এন্টিওক দখল করে নেয় এবং আলেপ্পোকে আশ্রিত রাজ্যে পরিণত করে। ফাতেমীয়দের মিশর বিজয়।
  • ৯৭২: বুলুগিন ইবনে জিরি আলজেরিয়ায় জিরি শাসন স্থাপন করেন।
  • ৯৭৩: বাগদাদে শিয়া সুন্নি বিভাজন।
  • ৯৭৪: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুতির ক্ষমতাত্যাগ; আল-তাইয়ের ক্ষমতাগ্রহণ।
  • ৯৭৫: ফাতেমীয় খলিফা আল-মুইজের মৃত্যু।
  • ৯৭৬: বুইয়ি সুলতান ইজ্জ আল-দাওলা পুনরায় ক্ষমতা দখল করেন। সামানি শাসক প্রথম মনসুরের মৃত্যু, দ্বিতীয় নুহের ক্ষমতালাভ। স্পেনে উমাইয়া খলিফা দ্বিতীয় আল-হাকামের মৃত্যু, দ্বিতীয় হিশামের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৭৭: সবুক্তগিন গজনভিদের আমির হন।
  • ৯৭৮: বুইয়ি সুলতান ইজ্জ আল-দাওলার মৃত্যু, আবুদ আল-দাওলার ক্ষমতা দখল। আলেপ্পোর হামদানিরা বুইয়িদের হাতে ক্ষমতাচ্যুত।
  • ৯৮১: বাহরাইনে কারমাতি শাসনের অবসান।
  • ৯৮২: বুইয়ি সুলতান আবুদ আল-দাওলার মৃত্যু; সামসাম আল-দাওলার ক্ষমতালাভ।
  • ৯৮৪: জিরি শাসক বুলুগিনের মৃত্যু, আল-মনসুর ইবনে বুলুগিনের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৮৬: শারাফ আল-দাওলা কর্তৃক বুইয়ি সুলতান সামসাম আল-দাওলার ক্ষমতাচ্যুতি।
  • ৯৮৯: বুইয়ি সুলতান শারাফ আল-দাওলার মৃত্যু, বাহা আল-দাওলার ক্ষমতালাভ।
  • ৯৯১: আব্বাসীয় খলিফা আল-তাইয়ের ক্ষমতাচ্যুতি, আল-কাদিরের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৯৬: জিরি শাসক মনসুরের মৃত্যু, বাদিস ইবনে মনসুরের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৯৭: সামানি শাসক দ্বিতীয় নুহের মৃত্যু, দ্বিতীয় মনসুরের ক্ষমতালাভ।
  • ৯৯৮: সামানি শাসক দ্বিতীয় মনসুরের মৃত্যু, দ্বিতীয় আবদুল মালিকের ক্ষমতা লাভ। মাহমুদ গজনভি গজনির আমির হন।
  • ৯৯৯: কারাহান তুর্কি বুগরা খান বুখারা দখল করেন। সামানিদের পতন।
  • ৯৯৯: এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ বৈশ্বিক মুসলিম জনসংখ্যা ১০ মিলিয়নে পৌছায়।

 

১১শ শতাব্দী (১০০১-১১০০ খ্রিষ্টাব্দ / ৩৯১–৪৯৪ হিজরি)

  • ১০০১: মাহমুদ গজনভি পেশাওয়ারের যুদ্ধে হিন্দু শাহিদের পরাজিত করেন।
  • ১০০৪: মাহমুদ গজনভি ভাটিয়া জয় করেন।
  • ১০০৫: মাহমুদ গজনভি মুলতান ও ঘুর জয় করেন।
  • ১০০৮: মাহমুদ গজনভি রাজপুত জোটকে পরাজিত করেন।
  • ১০১০: স্পেনে দ্বিতীয় হিশাম সিংহাসন ত্যাগ করেন। দ্বিতীয় মুহাম্মদ ক্ষমতালাভ করেন।
  • ১০১১: স্পেনে সুলাইমান ইবনুল হাকাম কর্তৃক দ্বিতীয় মুহাম্মদ ক্ষমতাচ্যুত হন।
  • ১০১২: স্পেনে বনি হামুদ ক্ষমতাদখল করে। বুইয়ি শাসক বাহা আল-দাওলা মৃত্যুবরণ করেন, সুলতান আল-দাওলা ক্ষমতালাভ করেন।
  • ১০১৬: জিরি শাসক নাসির আল-দাওলা বাদিসের মৃত্যু; আল মুইজের ক্ষমতালাভ।
  • ১০১৮: স্পেনে চতুর্থ আবদুর রহমান ক্ষমতা দখল করেন।
  • ১০১৯: মাহমুদ গজনভি পাঞ্জাব জয় করেন।
  • ১০২০: মুশাররিফ আল-দাওলা কর্তৃক বুইয়ি শাসক সুলতান আল-দাওলা ক্ষমতাচ্যুত হন। ফাতেমীয় খলিফা আল হাকিমের মৃত্যু এবং আলি আজ-জাহিরের ক্ষমতায়লাভ।
  • ১০২৪: স্পেনে চতুর্থ আবদুর রহমান নিহত হন।
  • ১০২৫: বুইয়ি শাসক মুশাররিফ আল-দাওলার মৃত্যু এবং জালাল আল-দাওলার ক্ষমতালাভ।
  • ১০২৯: স্পেনে তৃতীয় মুহাম্মদ মারা যান, তৃতীয় হিশাম ক্ষমতালাভ করেন।
  • ১০৩০: মাহমুদ গজনভি মৃত্যুবরণ করেন।
  • ১০৩১: স্পেনে তৃতীয় হিশাম ক্ষমতাচ্যুত হন, কর্ডো‌বা খিলাফতের পতন হয়। আব্বাসীয় খলিফা আল-কাদির মৃত্যুবরণ করেন, আল-কাইম খলিফা হন।
  • ১০৩৬: ফাতেমীয় খলিফা আলি আজ-জাহিরের মৃত্যু, মাআদ আল-মুনতাসির বিল্লাহর ক্ষমতালাভ। তুগরিল সেলজুকদের সুলতান হিসেবে সিংহাসনে আরোহণ করেন।
  • ১০৩৭: তুগরিলের নেতৃত্বে সেলজুক তুর্কিরা গজনি আক্রমণ করে।
  • ১০৪০: দান্দানাকানের যুদ্ধ, সেলজুকরা গজনভিদের পরাজিত করে। সুলতান প্রথম মাসুদ ক্ষমতাচুত হন এবং মুহাম্মদ গজনভি ক্ষমতায় আসেন। উত্তর আফ্রিকায় আলমোরাভিরা ক্ষমতায় আসে।
  • ১০৪১: মওদুদ গজনভি কর্তৃক মুহাম্মদ গজনভি ক্ষমতাচ্যুত হন।
  • ১০৪৪: বুইয়ি শাসক জালাল আল-দাওলার মৃত্যু, আবু কালিজারের ক্ষমতালাভ।
  • ১০৪৬: বাসাসিরি বাগদাদের ক্ষমতা দখল করেন।
  • ১০৪৭: উত্তর আফ্রিকায় জিরিরা ফাতেমিয়দের সাথে মিত্রতা ফিরিয়ে নিয়ে আব্বাসীয়দের সাথে মিত্রতা স্থাপন করে।
  • ১০৪৮: বুইয়ি শাসক আবু কালিজারের মৃত্যু, মালিক আল-রহিম।
  • ১০৫০: ইউসুফ ইবনে তাশফিন মাগরেবে ক্ষমতালাভ করেন।
  • ১০৫৫: তুগরিল কর্তৃক বুইয়িরা ক্ষমতাচ্যুত হয়।
  • ১০৫৭: বাসাসিরি বাগদাদের ক্ষমতা পুনরায় দখল করেন, খলিফা আল-কাইম ক্ষমতাচ্যুত হন।
  • ১০৫৯: তুগরিল বাগদাদের ক্ষমতা পুনরায় দখল করেন, আল-কাইম খলিফা হিসেবে পুনরায় অধিষ্ঠিত হন।
  • ১০৬০: ইবরাহিম গজনভি সুলতান হন। ইউসুফ ইবনে তাশফিন মারাকেশ শহরের পত্তন করেন। জিরিরা তাদের রাজধানী আশির ত্যাগ করে এবং বেজাইয়ায় নতুন রাজধানী স্থাপন করে।
  • ১০৬২: জিরি শাসক আল মুইজের মৃত্যু, তামিনের ক্ষমতালাভ।
  • ১০৬৩: সুলতান তুগরিলের মৃত্যু, আল্প আরসালানের ক্ষমতালাভ।
  • ১০৭১: মানজিকার্টে‌র যুদ্ধ, সেলজুক তুর্কিরা বাইজেন্টাইন সম্রাট চতুর্থ রোমানোসকে বন্দী করে।
  • ১০৭৩: আল্প আরসালানের মৃত্যু, প্রথম মালিক শাহ ক্ষমতালাভ করেন।
  • ১০৭৭: আব্বাসীয় খলিফা আল-কাইমের মৃত্যু, আল-মুকতাদির ক্ষমতালাভ।
  • ১০৭৭: সেলজুক তুর্কিরা রুম সালতানাত প্রতিষ্ঠা করে।
  • ১০৮২: আলমোরাভিরা আলজেরিয়া জয় করে।
  • ১০৮৫: চার বছর অবরোধের পর ষষ্ঠ অলফেনসোর কাছে টলেডো আত্মসমর্পণ করে।
  • ১০৮৬: সাগ্রাজাসের যুদ্ধ। আলমোরাভিরা স্পেনে খ্রিষ্টানদের পরাজিত করে।
  • ১০৮৬: রুম সালতানাতের সুলতান সুলাইমান ইবনে কুতুলমিশের মৃত্যু, প্রথম কিলিজ আরসালানের ক্ষমতালাভ।
  • ১০৯০: হাসান সাবাহ আলামুত দখল করে একে ইসমাইলিদের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে গড়ে তোলেন।
  • ১০৯১: নরম্যানরা সিসিলি দখল করে; মুসলিম শাসনের অবসান হয়।
  • ১০৯২: সেলজুক সুলতান প্রথম মালিক শাহর মৃত্যুবরণ করেন, প্রথম মাহমুদ ক্ষমতালাভ করেন।
  • ১০৯৪: সেলজুক সুলতান প্রথম মাহমুদের মৃত্যু; বারকিয়ারুকের ক্ষমতালাভ। আব্বাসীয় খলিফা আল-মুকতাদির মৃত্যু, মুসতাহজিরের ক্ষমতালাভ।
  • ১০৯৫: প্রথম ক্রুসেড।
  • ১০৯৯: ক্রুসেডাররা জেরুজালেম দখল করে। এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ বৈশ্বিক মুসলিম জনসংখ্যা সামগ্রিকভাবে ৫% বৃদ্ধি পায়।

১২শ শতাব্দী (১১০১–১২০০ খ্রিষ্টাব্দ/৪৯৪ – ৫৯৭ হিজরি)

  • ১১০১: ফাতেমীয় খলিফা আল-মুসতালির মৃত্যু, আল-আমির বি-আহকামিল্লাহ ক্ষমতালাভ করেন।
  • ১১০৫: সেলজুক সুলতান বারকিয়ারুকের মৃত্যু, প্রথম মুহাম্মদের ক্ষমতালাভ।
  • ১১০৬: আল মুতাওয়িদ ইউসুফ বিন তাশফিনের মৃত্যু।
  • ১১০৭: রুম সুলতান প্রথম কিলিজ আরসালানের মৃত্যু, মালিক শাহর ক্ষমতালাভ।
  • ১১০৮: জিরি শাসক তামিনের মৃত্যু, ইয়াহিয়ার ক্ষমতালাভ।
  • ১১১১: দার্শনিক ইমাম গাজ্জালির মৃত্যু।
  • ১১১৬: রুম সুলতান মালিক শাহর মৃত্যু, মাসুদের ক্ষমতালাভ।
  • ১১১৮: সেলজুক সুলতান মুহাম্মদের মৃত্যু, দ্বিতীয় মাহমুদের ক্ষমতালাভ। আব্বাসীয় খলিফা আল-মুসতাজিরের মৃত্যু, আল-মুসতারশিদের ক্ষমতালাভ। স্পেনে খ্রিষ্টানরা জারাগোজা দখল করে।
  • ১১২১: ফাতেমীয় খলিফা আল-আমির বি-আহকামিল্লাহর মৃত্যু, আল-হাফিজের ক্ষমতালাভ।
  • ১১২৭: ইমাদউদ্দিন জেনগি মসুলে জেনগি শাসন প্রতিষ্ঠা করেন।
  • ১১২৮: খোয়ারিজমশাহ কুতবউদ্দিন মুহাম্মদের মৃত্যু, আতসিজের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৩০: সেলজুক সুলতান দ্বিতীয় মাহমুদের মৃত্যু, দ্বিতীয় তুগরুলের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৩৫: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুসতারশিদ নিহত হন, আল-রশিদ ক্ষমতালাভ করেন। সেলজুক সুলতান দ্বিতীয় তুগরুলের মৃত্যু, মাসুদের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৩৬: আব্বাসীয় খলিফা আল-রশিদ ক্ষমতাচ্যুত, আল-মুক্বতাফির ক্ষমতালাভ।
  • ১১৪৪: ইমাদউদ্দিন জেনগি খ্রিষ্টানদের নিকট থেকে এডেসা জয় করেন, দ্বিতীয় ক্রুসেড।
  • ১১৪৬: ইমাদউদ্দিন জেনগির মৃত্যু, নুরউদ্দিন জেনগির ক্ষমতালাভ।
  • ১১৪৭: মাগরিবে আলমোহাদদের হাতে আলমোরাভিরা ক্ষমতাচ্যুত হয়।
  • ১১৪৮: উত্তর আফ্রিকায় জিরি শাসনের সমাপ্তি হয়। দামেস্কের অবরোধ প্রতিহত করা হয়।
  • ১১৪৯: ফাতেমীয় খলিফা আল-হাফিজের মৃত্যু, আজ-জাহিরের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৫২: সেলজুক সুলতান মাসুদের মৃত্যু, তৃতীয় মালিক শাহর ক্ষমতালাভ। উত্তর আফ্রিকায় হামাদি শাসন সমাপ্ত হয়।
  • ১১৫৩: সেলজুক সুলতান তৃতীয় মালিক শাহর মৃত্যু, দ্বিতীয় মুহাম্মদের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৫৪: ফাতেমীয় খলিফা আজ-আহিরের মৃত্যু, আল-ফাইজের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৫৬: রুম সুলতান মাসুদের মৃত্যু, দ্বিতীয় কিলিজ আরসালানের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৫৯: সেলজুক সুলতান দ্বিতীয় মুহাম্মদের মৃত্যু, সুলাইমানের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৬০: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুক্বতাফির মৃত্যু, আল-মুসতানজিদের ক্ষমতালাভ। ফাতেমীয় খলিফা আল-ফাইজের মৃত্যু, আল-আদিদের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৬১: সেলজুক সুলতান সুলাইমানের মৃত্যু, আরসালান শাহর ক্ষমতালাভ।
  • ১১৬৩: আলমোহাদ শাসক আবদুল মুমিনের মৃত্যু, প্রথম ইউসুফের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৭০: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুসতানজিদের মৃত্যু, আল-মুসতাদির ক্ষমতালাভ।
  • ১১৭১: ফাতেমীয় খলিফা আল-আদিদের মৃত্যু। ফাতেমীয় খিলাফতের সমাপ্তি। সালাহউদ্দিন মিশরে আইয়ুবীয় রাজবংশ প্রতিষ্ঠা করেন।
  • ১১৭২: খোয়ারিজম শাহ আরসালানের মৃত্যু, সুলতান শাহর ক্ষমতালাভ।
  • ১১৭৩: তুকুশ শাহ কর্তৃক খোয়ারিজম শাহ সুলতান শাহ ক্ষমতাচ্যুত হন।
  • ১১৭৪: সালাহউদ্দিন সিরিয়াকে একীভূত করেন।
  • ১১৭৫: ঘুরিরা গুজ তুর্কিদের পরাজিত করে এবং গজনি দখল করে নেয়।
  • ১১৭৬: সেলজুক সুলতান আরসালান শাহর মৃত্যু, তৃতীয় তুগরুলের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৭৯: আব্বাসীয় খলিফা আল-মুসতাদির মৃত্যু, আন-নাসিরের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৮৫: আলমোহাদ শাসক প্রথম ইউসুফের মৃত্যু, ইয়াকুবের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৮৬: ঘুরিরা পাঞ্জাব থেকে গজনভিদের উৎখাত করে।
  • ১১৮৭: সালাহউদ্দিন খ্রিষ্টানদের নিকট থেকে জেরুজালেম পুনরায় অধিকার করেন, তৃতীয় ক্রুসেড।
  • ১১৯১: ঘুরি ও রাজপুতদের মধ্যে তরাইনের প্রথম যুদ্ধ সংঘটিত।
  • ১১৯২: তরাইনের দ্বিতীয় যুদ্ধ।
  • ১১৯৩: সালাহউদ্দিনের মৃত্যু। আল-আজিজ উসমানের ক্ষমতালাভ।
  • ১১৯৪: মুসলিমরা দিল্লি জয় করে। সেলজুক শাসনের সমাপ্তি হয়।
  • ১১৯৯: খোয়ারিজম শাহ তুকুশ শাহর মৃত্যু, আলাউদ্দিনের ক্ষমতালাভ। আলমোহাদ শাসক ইয়াকুবের মৃত্যু, মুহাম্মদ আন-নাসিরের ক্ষমতালাভ। ঘুরিরা উত্তর ভারত ও বাংলা জয় করে। এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ বৈশ্বিক মুসলিম জনসংখ্যা সামগ্রিকভাবে ৬% বৃদ্ধি পায়।

১৩শ শতাব্দী (১২০১–১৩০০ খ্রিষ্টাব্দ)

  • ১২০২: ঘুরিদ সুলতান গিয়াস উদ্দিনের মৃত্যু; মাহমুদের রাজীকরণ।
  • ১২০৮: শাহাব উদ্দিন ঘোরি ঘোজ তুর্কীদের কাছে পরাজিত হন।
  • ১২০৬: শাহাব উদ্দিন ঘুরির মৃত্যু। কুতুবউদ্দিন আইবিক লাহোরে রাজা হয়েছিলেন।
  • ১২১০: ঘুরিদ সুলতান মাহমুদের হত্যা, স্যামের রাজত্ব। কুতুব উদ্দিন আইবকের মৃত্যু, ভারতে আরম শাহের রাজত্ব।
  • ১২১১: ঘোরিদ শাসনের সমাপ্তি, খওরজম শাহদের দ্বারা অনুমোদিত তাদের অঞ্চলগুলি। ভারতে আরম শাহ ইলতুৎমিশ দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত।
  • ১২১২: স্পেনের এআই উকাবের যুদ্ধ, স্পেনে এআই মোহাদ শাসনের সমাপ্তি। এআই মোহাদরা আল-উক্বায় স্পেনের খ্রিস্টানদের কাছে পরাজয়ের শিকার হয়েছে। এআই মোহাদ সুলতান আন নাসির মরক্কোতে পালিয়ে যান যেখানে তার পরেই মারা যান। এআই মুস্তানসিরের পদবি গ্রহণকারী তাঁর পুত্র ইউসুফের রাজীকরণ over
  • ১২১৪: উত্তর আফ্রিকার এআই মোহাদ শাসক আল নাসিরের মৃত্যু, আল মুস্তানসিরের রাজত্ব। তাদের নেতা আবদুল হকের নেতৃত্বে বানু মেরিন মরক্কোর উত্তর পূর্ব অংশ দখল করেছে।
  • ১২১৬: তাদের নেতা আবদুল হকের নেতৃত্বে বানু মেরিন মরক্কোর উত্তর পূর্ব অংশ দখল করে। এআই মোহাদরা নাকুরের যুদ্ধে মেরিনিডদের কাছে পরাজিত হয়। বনু মেরিন নাকুরের যুদ্ধে এআই মোবাদকে পরাজিত করে।
  • ১২১৭: সিবু নদীর তীরে লড়াইয়ে মেরিনিডরা পরাজয়ের শিকার হয়। আবদুল হক নিহত হন এবং মেরিনিকরা মরক্কোকে সরিয়ে নিয়ে যায়। সিবুর যুদ্ধে মেরিনিডরা পরাজয়ের শিকার হয়; তাদের নেতা আবদুল হক নিহত হয়েছেন এবং তারা মরক্কোকে সরিয়ে নিয়েছেন।
  • ১২১৮: আইয়ুবিডের শাসক এআই আদিলের মৃত্যু, এআই কামিলের রাজত্ব। মেরিনিডরা তাদের নেতা ওথম্যানের অধীনে মরোক্কোতে ফিরে আসে এবং ফেজে দখল করে।
  • ১২২০: খয়ারজম শাহ আলাউদ্দিনের মৃত্যু, জালাল উদ্দিন মঙ্গলবার্নীর সংঘর্ষ।
  • ১২২২: জাঙ্গি শাসক নাসির উদ্দিন মাহমুদের মৃত্যু, বদর উদ্দিন লুলু কর্তৃক দখল করা ক্ষমতা।
  • ১২২৩: আল মোহাদ শাসক মুনতাসিরের মৃত্যু, আবদুল ওয়াহিদের রাজীকরণ। ইউসুফ এআই মুস্তানসিরের মৃত্যু, মরক্কোতে আবদুল ওয়াহিদের রাজীকরণ .. স্পেনে ইউসুফের এক ভাই তার স্বাধীনতা ঘোষণা করে এবং এআই আদিল উপাধি গ্রহণ করেন। স্পেনে আবু মুহাম্মদ এআই আদিলকে পদচ্যুত করেছেন। এআই আদিল পালিয়ে মরক্কোতে গিয়ে আবদুল ওয়াহিদকে উত্সাহ দিয়েছিল।
  • ১২২৪: এআই মোহাদের শাসক আবদুল ওয়াহিদের মৃত্যু, আবদুল্লাহ আদিলের রাজত্ব।
  • ১২২৫: আব্বাসীয় খলিফা এআই নাসিরের মৃত্যু, এআই মুস্তানসিরের রাজত্ব।
  • ১২২৭: এআই মোহাদের শাসক আবদুল্লাহ আদিলের মৃত্যু, মোস্তাসিমের রাজত্ব। আল আদিলের হত্যা, তার পুত্র ইয়াহিয়া যিনি আল মোস্তাসিমের নামে সিংহাসন গ্রহণ করেন তার রাজত্ব।
  • ১২২৯: এআই মোহাদ শাসক মোস্তাসিমের মৃত্যু, ইদ্রিসের রাজত্ব। আইয়ুবিড এআই কামিল জেরুজালেমকে খ্রিস্টানদের কাছে ফিরিয়ে আনেন। আবু মুহাম্মদ স্পেনে মারা যান এবং তার পরে আল মামুনের স্থলাভিষিক্ত হন। এআই মামুন খ্রিস্টান সহায়তায় মরোক্কো আক্রমণ করেছেন। ইয়াহিয়া পরাজিত হয়েছেন এবং আল মামুনের হাতে ক্ষমতা দখল করেছেন। তিনি ইবনে তুমারাতের মাহদীশিপকে অস্বীকার করেছেন।
  • ১২৩০: খয়ারজম শাহ শাসনের সমাপ্তি।
  • ১২৩২: এআই মোহাদ শাসক ইদ্রিসের দ্বিতীয় আবদুল ওয়াহিদের রাজত্বের মৃত্যু। আল মামুনকে হত্যা; তাঁর পুত্র আর-রশিদের রাজীকরণ।
  • ১২৩৪: আইয়ুবিদের শাসক এআই কামিলের মৃত্যু, এআই আদিলের রাজত্ব।
  • ১২৩৬: দিল্লির সুলতান ইলতুতমিশের মৃত্যু। রুকন উদ্দিন ফিরোজ শাহের রাজীকরণ।
  • ১২৩৭: রাজিয়া সুলতানার দিল্লি সুলতান হিসাবে রাজীকরণ।
  • ১২৪০: আর-রশিদের মৃত্যু; তাঁর পুত্র আবু সাইদকে নিয়ে যাওয়া।
  • ১২৪১: রাজিয়া সুলতানার মৃত্যু, বাহরাম শাহের রাজত্ব।
  • ১২৪২: বাহরাম শাহের মৃত্যু, আলাউদ্দিন মাসুদ শাহকে দিল্লির সুলতানের পদে অধিগ্রহণ। আবদুল ওয়াহিদকে আবু হাসানের রাজীকরণের রায় এআই মোহাদের মৃত্যু। আব্বাসীয় খলিফা মুস্তানসিরের মৃত্যু, মোস্তাসিমের রাজত্ব।
  • ১২৪৩: এআই মোহাদের শাসক দ্বিতীয় আবদুল ওয়ালিদের মৃত্যু, এর উত্তরণ
  • ১২৪৪: আবু বয়াশের যুদ্ধে আল মোহাদ মেরিনিদের পরাজিত করেছিলেন। মেরিনিডরা মরক্কোকে সরিয়ে দেয়।
  • ১২৪৫: মুসলমানরা জেরুজালেমকে পুনরায় দখল করল।
  • ১২৪৬: দিল্লির সুলতান আলাউদ্দিন মাসুদ শাহের মৃত্যু, নাসির উদ্দিন মাহমুদ শাহের রাজত্ব।
  • ১২৪৮: এআই মোহাদের শাসক আবুল হাসানের মৃত্যু, ওমর মুর্তজার রাজত্ব। আবু সাইদ ট্লেমসেনকে আক্রমণ করেছেন, কিন্তু আক্রমণে নিহত হয়েছেন; তাঁর পুত্র মুর্তদার রাজত্ব।
  • ১২৫০: মেরিনিডরা মরক্কোতে ফিরে আসে এবং এর বড় অংশ দখল করে।
  • ১২৫৮: মঙ্গোলরা বাগদাদকে বরখাস্ত করেছে। আব্বাসীয় খলিফা মুস্তাসিমের মৃত্যু। আব্বাসীয় শাসনের সমাপ্তি। বাগদাদের পতন, আব্বাসীয় খেলাফতের সমাপ্তি। হালাকুর অধীনে মঙ্গোল দ্বিতীয়-খানরা রাজধানী মারাগায় ইরান ও ইরাকে তাদের রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করে। আব্বাসীয় খলিফাকে এই আচরণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও সোনার হোর্ডের মুসলিম প্রধান বেরেক খান বাগদাদ থেকে তাঁর কন্টিনজেন্ট প্রত্যাহার করেছিলেন।
  • ১২৫৯: হাফসিদের শাসক আবু আবদুল্লাহ নিজেকে খলিফা হিসাবে ঘোষণা করেন এবং এআই মুস্তামিরের নাম ধরে নেন।
  • ১২৬০: সিরিয়ায় আইন জলুতের যুদ্ধ। মঙ্গোলরা মিশরের মামলুকদের কাছে পরাজিত হয়েছিল এবং মঙ্গোলদের অদম্যতার স্পেলটি ভেঙে গেছে। বায়বার্স মামলুক সুলতান হন।
  • ১২৬২: ইন্দো-পাকিস্তান উপমহাদেশে সোহরাওয়ার্দী সুফি আদেশ প্রবর্তনের কৃতিত্ব পাওয়া যায় মুলতানে বাহাউদ্দিন জিক্রিয়ার মৃত্যু।
  • ১২৬৫: হালাকুর মৃত্যু। ফরিদউদ্দিন গঞ্জ শাকরের মৃত্যু ভারত-পাকিস্তান উপমহাদেশের চিশতী সাধক।
  • ১২৬৬: ইসলামে ধর্মান্তরিত সোনার বাহিনীর প্রথম শাসক বেরেক খানের মৃত্যু। অষ্টম ক্রুসেড। ক্রুসেডাররা তিউনিসিয়ায় আক্রমণ করেছিল। ক্রুসেডের ব্যর্থতা।
  • ১২৬৭: মালিক উল সালেহ ইন্দোনেশিয়ার প্রথম মুসলিম রাষ্ট্র সমুদ্র পাসাই প্রতিষ্ঠা করলেন। মুরতদা খ্রিস্টানদের সাহায্য চেয়েছিল এবং স্পেনীয়রা মরোক্কো আক্রমণ করেছিল। মেরিনিডরা স্পেনীয়দের মরক্কো থেকে তাড়িয়ে দেয়। মুর্তাদাকে হত্যা; আবু দাব্বাসের রাজীকরণ।
  • ১২৬৯: আবু দব্বাস মেরিনিডা দ্বারা উত্থিত, আল মোহাদের শেষ প্রান্তে। মরক্কোতে এআই মোহাদের শাসনের অবসান ঘটিয়ে মরকিনো আবু ইয়াকুবের অধীনে মরোক্কোর ক্ষমতায় আসে।
  • ১২৭০: এম আলিতে মুসলিম শাসনের প্রতিষ্ঠাতা মনসা ওয়ালীর মৃত্যু।
  • ১২৭২: গ্রানাডা রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদের মৃত্যু। ইয়াঘমুরসন মরোক্কো আক্রমণ করেছেন কিন্তু যুদ্ধে তার বিপরীতে মিলিত হয়েছে
  • ১২৭৩: জালালউদ্দিন রুমির মৃত্যু।
  • ১২৭৪: নাসিরউদ্দিন তুষির মৃত্যু। মেরিনিডরা জায়েনিদের কাছ থেকে সিজিলমাসাকে কুস্তি করেছিল। ইংল্যান্ডের প্রথম এডওয়ার্ডের অধীনে নবম ক্রুসেড। ক্রুসেড ফিয়াস্কোতে শেষ হয় এবং অ্যাডওয়ার্ড ইংল্যান্ডে ফিরে আসেন।
  • ১২৭৭: বায়বার্সের মৃত্যু।
  • ১২৮০: হিমসের যুদ্ধ।
  • ১২৮৩: ইয়াঘমুরাসানের মৃত্যু। তাঁর পুত্র ওথম্যানের সংশোধন।
  • ১২৮৫: তিউনিসিস বিভক্ত হয়ে গেল তিউনিস ও বুগিতে।
  • ১২৮৬: গিয়াসউদ্দিন বালবানের মৃত্যু। আবু ইউসুফ ইয়াকুবের মৃত্যু। বুঘরা খান নাসিরুদ্দিনের নামে বাংলায় তাঁর স্বাধীনতার ঘোষণা দেন।
  • ১২৯০: দাস রাজবংশের সমাপ্তি জালালউদ্দিন খিলজি ক্ষমতায় আসেন। ওথম্যান বিজয়ের ক্যারিয়ারে যাত্রা শুরু করে এবং 1290 সি.ই. এর মধ্যে বেশিরভাগ কেন্দ্রীয় মাগরেব জায়ানীয়দের দ্বারা জয়লাভ করে।
  • ১২৯১: সাদি।
  • ১২৯৬: আলাউদ্দিন গাজান ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন।
  • ১২৯৯: মঙ্গোলরা সিরিয়ায় আক্রমণ করেছিল। মেরিনিডরা জায়ানিডদের রাজধানী ট্লেমসেনকে ঘিরে রেখেছে।

১৪শ শতাব্দী (১৩০১–১৩৯৯ খ্রিষ্টাব্দ)

  • ১৩০১: বাংলায়, বাংলার রাজা রুকনউদ্দিনের মৃত্যুতে ভাই শামসুদ্দিন ফিরুজ রাজত্ব করেছিলেন।
  • ১৩০২: গ্রানাডায়, দ্বিতীয় মুহম্মদের মৃত্যু; তৃতীয় মুহাম্মদ এর উত্তরাধিকার।
  • ১৩০৪: দ্বিতীয় খাঁসের সাম্রাজ্যে গাজানের মৃত্যু, তাঁর ভাই খুদাবন্দ উল জয়তুর উত্তরসূরি। আলজেরিয়ায়, ওথম্যানের মৃত্যু, তাঁর পুত্র আবু জায়ান মুহাম্মদের উত্তরসূরি।
  • ১৩০৫: খিলজি সাম্রাজ্যে আলাউদ্দিন খিলজি রাজপুতানা জয় করেছিলেন।
  • ১৩০৬: চুগিলস সাম্রাজ্যে, দাভার মৃত্যু, তাঁর পুত্র কুঞ্জুকের উত্তরসূরি।
  • ১৩০৭: মেরিনিড সাম্রাজ্যে মেরিনিড সুলতান আবু ইয়াকুব ইউসুফকে হত্যা; আবু থাবিতের রাজত্ব
  • ১৩০৮: কুগলস সাম্রাজ্যে, কুঞ্জুকের জবানবন্দি, তালিকু কর্তৃক দখলকৃত শক্তি। আলজেরিয়ায়, আবু জায়ন মুহাম্মদের মৃত্যু, তাঁর ভাই আবু হামুউ মুসার উত্তরসূরী। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু থাবিত আবু রাবেহ সুলাইমান কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিল।
  • ১৩০৯: কুগলস সাম্রাজ্যে তালিকুর হত্যাকাণ্ড, কুবাকের অধিগ্রহণ। গ্রানাডায়, তৃতীয় মুহাম্মদ তার চাচা আবুল জুয়ুশ নসর কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিল।
  • ১৩১০: কুগলস সাম্রাজ্যে কুবাককে তার ভাই ইসান বুগা কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত করে। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু রাবেহ সুলাইমান আবু সাইদ ওথমান কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হন। খিলজি সাম্রাজ্যে আলাউদ্দিন ডেকানকে জয় করেছিলেন।
  • ১৩১২: তিউনিসিয়ায়, তিউনিসে আবুল বাকাকে আল লিহিয়ানি উড়িয়ে দিয়েছিলেন।
  • ১৩১৩: মঙ্গোল দ্বিতীয় খাঁদের সাম্রাজ্যে সিরিয়ায় আক্রমণ চালিয়ে মঙ্গোলরা বিতাড়িত হয়। গোল্ডেন হোর্ড সাম্রাজ্যে টোকটুর মৃত্যু, তাঁর ভাগ্নে উজবেগের রাজত্ব।
  • ১৩১৪: কাশ্মীরে, বাল্টিস্তানের একজন অ্যাডভেঞ্চারার রেইচেন কাশ্মীরের সিনহা দেবাকে পদত্যাগ করলেন। রেনচান ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়ে সদরুদ্দিনের নাম গ্রহণ করেন। গ্রানাডায় আবুল জুয়ুশ তার ভাতিজা আবুল ওয়াহিদ ইসমাইলকে ক্ষমতাচ্যুত করে।
  • ১৩১৫: তিউনিসিয়ায়, বুগি এবং তিউনিসের মধ্যে যুদ্ধ, লিহানী পরাজিত এবং নিহত হয়েছিল। আবু বকর বুগি এবং তিউনিসের শাসক হন।
  • ১৩১৬: মঙ্গোল দ্বিতীয় খাঁসের সাম্রাজ্যে, খুদাবান্দা উল জয়তুর মৃত্যু, আবু সাইদের উত্তরসূরি। খিলজির সাম্রাজ্যে আলাউদ্দিনের মৃত্যু, শাহাবুদ্দিন উমারের রাজত্ব, হিন্দু ধর্মান্তরিত দেশ মালিক কাফুরের ক্ষমতা দখল।
  • ১৩১৮: খিলজী সাম্রাজ্যে মালিক কাফুরকে হত্যা, শাহাবুদ্দীন উমরের জবানবন্দি, কুতুবুদ্দীন মোবারকের রাজত্ব। চুগিলস সাম্রাজ্যে ইসান বুগা কুবাক কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিল।
  • ১৩২০: খিলজি সাম্রাজ্যে কুতুবুদ্দীন মোবারককে হত্যা, খুসরো খান কর্তৃক হিন্দু ধর্মান্তরিত হয়ে ক্ষমতা দখল। খুসরো খান গাজী মালিককে উৎখাত করেছেন। খিলজির শাসনের সমাপ্তি। তিউনিসিয়ায় আবু বকর তিউনিস থেকে আবু ইমরানকে বহিষ্কার করেছিলেন। তুঘলক সাম্রাজ্যে গাজী মালিক তুঘলক রাজবংশের শাসন খুঁজে পেয়েছিলেন।
  • ১৩২১: চুগিলস সাম্রাজ্যে কুবাকের মৃত্যু, দাবা তেমুর কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হিব্বিশির উত্তরসূরি।
  • ১৩২২: চুগিলস সাম্রাজ্যে দাভা তেমুরকে ইসলামে ধর্মান্তিত তারমাশিরিন কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত করে। বাংলায় শামসুদ্দিন ফিরুজের মৃত্যু। রাজ্য দুটি ভাগে বিভক্ত। গিয়াসউদ্দিন বাহাদুর সোনারগাঁয়ে রাজধানী নিয়ে পূর্ব বাংলার শাসক হয়েছিলেন, শাহাবুদ্দিন লখনৌতির রাজধানী নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের শাসক হন।
  • ১৩২৪: বাংলায় শাহাবুদ্দিন মারা যান এবং তাঁর ভাই নাসিরুদ্দিন তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন।
  • ১৩২৫: তুঘলক সাম্রাজ্যে গাজী মালিকের মৃত্যু (গিয়াসউদ্দিন তুঘলক); তাঁর পুত্র মুহম্মদ তুঘলকের রাজত্ব। গ্রানাডায়, আবুল ওয়াহিদ ইসমাইলকে হত্যা, তার পুত্র মুহাম্মদ চতুর্থ। মুহাম্মদকে হত্যা করা IV। তার ভাই আবুল হাল্লাজ ইউসুফের রাজীকরণ। সমুদ্র পসাই সাম্রাজ্যে, মালিক আল তাহির প্রথমের মৃত্যু, দ্বিতীয় মালিক আল তাহিরের রাজত্ব। বাংলায় গিয়াসউদ্দিন তুঘলকের সহায়তায় নাসিরউদ্দিনকে ওভার-নিক্ষেপ করেন। গিয়াসউদ্দিন বাহাদুর এবং নিজেই সংযুক্ত বাংলার শাসক হয়েছিলেন
  • ১৩২৬: অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে, ওথম্যানের মৃত্যু, ওখানের উত্তরসূরি। অরখান বুর্সা জয় করে এটিকে নিজের রাজধানী করে তোলে।
  • ১৩২৭: অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে তুর্কিরা নিকাইয়া শহর দখল করে।
  • ১৩২৯: তুঘলক সাম্রাজ্যে মুহাম্মদ তুঘলক রাজধানী দিল্লী থেকে দक्कানের দৌলতাবাদে স্থানান্তর করেছিলেন।
  • ১৩৩০: চুগিলস সাম্রাজ্যে ট্রমাশিরিনের মৃত্যু, চাংশাহীর উত্তরসূরি। আমির হুসেন বাগদাদে জালায়ার রাজবংশের শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। তিউনিসিয়ায়, আবু বকর আবু ইমরানকে ক্ষমতাচ্যুত করে এবং তার অধীনে রাষ্ট্র আবার unitedক্যবদ্ধ হয়। বাংলায় মুহাম্মদ বি তুঘলক তাঁর পিতার নীতি উল্টে গিয়াসউদ্দিন বাহাদুরকে সোনারজিওনের সিংহাসনে ফিরিয়ে দেন।
  • ১৩৩১: মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু সাইদ ওথমানের মৃত্যু, আবুল হাসানের রাজত্ব। বাংলায়, তুঘলুকরা বাংলার সংযুক্তি।
  • ১৩৩৫: দ্বিতীয় খাঁসের সাম্রাজ্যে আবু সাইদের মৃত্যু, আরপা কাউনের হাতে ক্ষমতা দখল। চুগিলস সাম্রাজ্যে, চাংশাহী হত্যা, বুড়ুনের অধিগ্রহণ।
  • ১৩৩৬: দ্বিতীয় খাঁসের সাম্রাজ্যে আরপা পরাজিত হয়ে হত্যা করে মুসার দ্বারা সফল হন। আমির তেমুরের জন্ম। জলায়র সাম্রাজ্যে আমির হুসেনের মৃত্যু, হাসান বুজুর্গের উত্তরসূরি। অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে দ্য টার্করা করাসি রাজ্যকে সংযুক্ত করে। বাংলায় সোনারগাঁয়ের তুঘলক গভর্নর অস্ত্র দখলকারী কর্তৃক হত্যা করে যিনি ক্ষমতা দখল করেছিলেন এবং ফখরুদ্দিন মোবারক শাহের নাম ধরে তাঁর স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন।
  • ১৩৩৭: দ্বিতীয় খাঁসের সাম্রাজ্যে মুসার শাসনকে ক্ষমতাচ্যুত করে মুহাম্মদ সুলতান হন। সর্ববাদান সাম্রাজ্যে, দ্বিতীয়-খানের শাসনের বিচ্ছেদ হওয়ার সময়, এক সামরিক অভিযাত্রী আবদুর রযাক সাবজ্বরে রাজধানীর সাথে খুরসানে একটি স্বতন্ত্র প্রধানত্ব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। মোজাফফরীদের সাম্রাজ্যে দ্বি খান শাসনের বিচ্ছেদে মুবারাজুদ দীন মুহাম্মদ মুজাফারিদ রাজবংশের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে, টার্করা নিকোমেডিয়া শহর দখল করে। আলজেরিয়ায় আলজেরিয়া মেরিনিডদের দখলে।
  • ১৩৩৮: দ্বিতীয় খাঁস সাম্রাজ্যে মুহাম্মদ সতি বেগের উত্তরাধিকারী হয়ে ক্ষমতাচ্যুত হন। সতী বেগ সুলাইমানকে বিয়ে করেন যিনি সহশাসক হন।
  • ১৩৩৯: কাশ্মীরে, সদরুদ দিনের মৃত্যু, একটি হিন্দু উদ্যান দেব দ্বারা সিংহাসন captured চুগিলস সাম্রাজ্যে বুড়ুনের জবানবন্দি, ইসুন তেমুরের অধিগ্রহণ। বাংলায়, লখনৌতি-কদর খানের তুঘলক গভর্নরকে হত্যা করা হয়েছিল এবং সেনাবাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফের হাতে ক্ষমতা দখল করা হয়েছিল যিনি তাঁর স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং আলাউদ্দিন আলী শাহ উপাধি গ্রহণ করেন।
  • ১৩৪০: মোজাফফরীদের সাম্রাজ্যে মুজাফফারিদরা কিরমানকে জয় করেছিল। চুগিলস সাম্রাজ্যে আইসুন তেমুরের জবানবন্দি, মুহাম্মদের রাজীকরণ।
  • ১৩৪১: গোল্ডেন হর্ড সাম্রাজ্যে, উজবেগের মৃত্যু, তাঁর পুত্র টিনি বেগের উত্তরসূরি।
  • ১৩৪২: গোল্ডেন হর্ড সাম্রাজ্যে, তিনি বেগ তার ভাই জানি বেগ কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হন।
  • ১৩৪৩: কুগলস সাম্রাজ্যে মুহাম্মদকে ক্ষমতাচ্যুত করে কাজান কর্তৃক দখল করা শক্তি। বাংলায় আলাউদ্দিনের একজন কর্মকর্তা তার পৃষ্ঠপোষককে হত্যা করে পশ্চিমবঙ্গের সিংহাসন দখল করেন।
  • ১৩৪৪: দ্বিতীয় খাঁসের সাম্রাজ্যে সুলায়মান মোতায়েন, আনুশেরওয়ানের উত্তরসূরি।
  • ১৩৪৫: সমুদ্র পাসাই সাম্রাজ্যে দ্বিতীয় মালিক তাহিরের মৃত্যু, তৃতীয় তাহিরের রাজত্ব। তাঁর শাসনকাল চৌদ্দ শতকে জুড়ে ছিল। বাংলায় লিলিয়াস পূর্ববাংলা দখল করে এবং তাঁর অধীনে বাংলা আবার একত্রিত হয়। গৌড়ে তিনি নিজের রাজধানী স্থাপন করেন।
  • ১৩৪৬: কুগলস সাম্রাজ্যে, কাজান মোতায়েন, হায়ান কুলির অধিগ্রহণ। তিউনিসিয়ায় আবু বকরের মৃত্যু, তাঁর ছেলে ফাদালের উত্তরাধিকার। কাশ্মীরে, উদ্যান দেবের মৃত্যু, শাহ মির্জার দ্বারা অধিষ্ঠিত সিংহাসন যিনি শাহ মীরের নাম ধরেছিলেন এবং শাহ মীর রাজবংশের শাসন করেছিলেন।
  • ১৩৪৭: মেরিনিডরা তিউনিসিয়াকে দখল করে। বাহমানিদের সাম্রাজ্যে হাসান গাঙ্গু তার স্বাধীনতা ঘোষণা করে এবং রাজধানী গুলবার্গায় ডেকানে একটি রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।
  • ১৩৪৯: কাশ্মীরে শাহ মীরের মৃত্যু, তাঁর পুত্র জামসবেদের রাজত্ব। আলজেরিয়ায়, আবু সাইদ ওথমানের অধীনে জায়ানিস আলজেরিয়া পুনরায় দখল করেন।
  • ১৩৫০: সর্বদর সাম্রাজ্যে আবদুর রাযাকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। আমির মাসুদ ক্ষমতা দখল করেছেন। তিউনিসিয়ায়, ফাদালের জবানবন্দি, তার ভাই আবু ইসহাকের উত্তরসূরি। কাশ্মীরে জামশেদকে তার সৎ ভাই আলাউদ্দিন আলী শের দ্বারা হটিয়ে দেওয়া হয়েছিল।
  • ১৩৫১: মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবুল হাসানের মৃত্যু, আবু ইনানের উত্তরসূরি। তুঘলক সাম্রাজ্যে, ফিরুজ শাহ তুগলকের রাজত্ব মুহাম্মদ তুঘলকের মৃত্যু।
  • ১৩৫২: আলজেরিয়ায় মেরিনিডরা আবার আলজেরিয়া দখল করল। আবু সাইদ ওসমানকে বন্দী করে হত্যা করা হয়েছে।
  • ১৩৫৩: মঙ্গোল দ্বিতীয় খান শাসনের সমাপ্তি। অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে, টার্করা হোলসপয়েন্টের ইউরোপীয় দিকের টাইম্পার দুর্গ অর্জন করে। মুজাফফারিদ সাম্রাজ্যে মুজাফফারিদরা শিরাজকে জয় করে এবং সেখানে তাদের রাজধানী প্রতিষ্ঠা করে।
  • ১৩৫৪: মুজাফারিড সাম্রাজ্যে, মুজাফারিডস সংযুক্তি ইসফাহান। গ্রানাডায়, আবু হাল্লাজ ইউসুফের হত্যা, তার পুত্র মুহাম্মদ ভি।
  • ১৩৫৬: জলায়র সাম্রাজ্যে হাসান বুজুরের মৃত্যু, তাঁর পুত্র ওওয়াইয়ার উত্তরসূরী।
  • ১৩৫৭: গোল্ডেন হর্ড সাম্রাজ্যে, জানি বেগের মৃত্যু, কুল্পার উত্তরসূরি।
  • ১৩৫৮: বাহমানিদের সাম্রাজ্যে হাসান গাঙ্গুর মৃত্যু, তাঁর পুত্র মুহম্মদ শাহের রাজত্ব। মুজাফারিদের সাম্রাজ্যে মুবারাজউদ্দিন মুহাম্মদের মৃত্যু; শাহ সুজার সংঘর্ষ। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু ইনানের হত্যা, আবু বকর সাইদের উত্তরসূরি। বাংলায় ইলিয়াসের মৃত্যু, তাঁর পুত্র সিকান্দার শাহের উত্তরসূরি।
  • ১৩৫৯: অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে অরখানের মৃত্যু, মুরাদের উত্তরসূরি। মুজাফারিদের সাম্রাজ্যে শাহ সুজা তার ভাই শাহ মাহমুদের দ্বারা পদচ্যুত হন। তিউনিসিয়ায় আবু ইসহাকের ভাগ্নে আবুল আব্বাস বিদ্রোহ করেন এবং বুগীতে তাঁর শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। আলজেরিয়ায়, দ্বিতীয় আবু হামুয়ের অধীনে জায়নিস আলজেরিয়া পুনরায় দখল করে। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু বকর সাইদ আবু সালিম ইব্রাহিম কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হন। গ্রানাডায়, মুহাম্মদ পঞ্চম রাজপ্রাসাদের বিপ্লবে সিংহাসন হারালেন, ইসমাইলের স্থলাভিষিক্ত হন।
  • ১৩৫৯: অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে অরখানের মৃত্যু, মুরাদের উত্তরসূরি। মুজাফারিদের সাম্রাজ্যে শাহ সুজা তার ভাই শাহ মাহমুদের দ্বারা পদচ্যুত হন। তিউনিসিয়ায় আবু ইসহাকের ভাগ্নে আবুল আব্বাস বিদ্রোহ করেন এবং বুগীতে তাঁর শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। আলজেরিয়ায়, দ্বিতীয় আবু হামুয়ের অধীনে জায়নিস আলজেরিয়া পুনরায় দখল করে। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু বকর সাইদ আবু সালিম ইব্রাহিম কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হন। গ্রানাডায়, মুহাম্মদ পঞ্চম রাজপ্রাসাদের বিপ্লবে সিংহাসন হারালেন, ইসমাইলের স্থলাভিষিক্ত হন।
  • ১৩৬০: মুজাফফরীদের সাম্রাজ্যে শাহ মাহমুদের মৃত্যু। শাহ সুজা ক্ষমতা পুনরুদ্ধার করলেন। চুগিলস সাম্রাজ্যে তুঘলক তেমুর দ্বারা ক্ষমতা দখল করা হয়েছিল। গ্রানাডায়, ইসমাইলকে তার ভগ্নিপতি আবু সাইদ কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত করে।
  • ১৩৬১: অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে মুরাদ থ্রেসের একটি অংশ জয় করে এবং থ্রেসের ডেমোলিকায় তার রাজধানী স্থাপন করে। গোল্ডেন হোর্ড সাম্রাজ্যে কুলপা তার ভাই নওরোজকে উত্সাহিত করেছিলেন। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু সেলিম ইব্রাহিমকে আবু উমর কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত করে। আবু উমর আবু জায়ানকে ক্ষমতাচ্যুত করেন।
  • ১৩৬২: গোল্ডেন হর্ড সাম্রাজ্যে, অরাজকতার রাজ্য। 20 বছরের মধ্যে 14 জন শাসক সিংহাসনে এসেছিলেন এবং তাদের প্রস্থান করেছিলেন। গ্রানাডায়, আবু সাইদ দ্বিতীয়বারের মতো শাসন করতে আসা মুহাম্মদ ভি এর দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত হন। কাশ্মীরে আলাউদ্দিন আলী শেরের মৃত্যু তাঁর ভাই শাহাবুদ্দিনের জায়গায় এসেছিলেন।
  • ১৩৬৫: অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে মাটিজার যুদ্ধে তুর্কিরা খ্রিস্টানদের পরাজিত করেছিল, বাইজেন্টাইন শাসক তুর্কিদের এক জবরদস্তিতে পরিণত হয়েছিল।
  • ১৩৬৬: মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু জায়ানকে হত্যা, আবু ফরিস আবদুল আজিজের উত্তরাধিকার।
  • ১৩৬৯: আমির তেমুর দ্বারা ক্ষমতা দখল চুগিলদের শাসনের সমাপ্তি। আমির তেমুর ট্রান্সসক্সিয়ানাতে ক্ষমতা দখল করেছেন। তিউনিসিয়ায় আবু ইসহাকের মৃত্যু। তাঁর পুত্র আবু বাকা খালিদের উত্তরসূরি।
  • ১৩৭০: তিউনিসিয়ায় আবুল বাকা আবুল আব্বাস কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হন যার অধীনে রাজ্য পুনরায় একত্রিত হয়। সর্বদর সাম্রাজ্যে আমির মাসুদের মৃত্যু, মুহাম্মদ তেমুরের উত্তরসূরি।
  • ১৩৭১: অটোমান তুর্কি সাম্রাজ্যে, বুলগেরিয়া, বুলগেরিয়ায় তুর্কিদের সংযুক্ত বাল্কান অঞ্চল পর্যন্ত আক্রমণ।
  • ১৩৭২: মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবু ফরিসের মৃত্যু, আবু মুহাম্মদের উত্তরসূরি।
  • ১৩৭৪: মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবুল মুহাম্মদ আবুল আব্বাসকে ক্ষমতাচ্যুত করেন।
  • ১৩৭৫: সর্বদারদার সাম্রাজ্যে মুহম্মদ তেমুরের জবানবন্দি, শামসুদ্দিন কর্তৃক দখলকৃত শক্তি জালায়ার সাম্রাজ্যে ওয়েসের মৃত্যু, তাঁর পুত্র হুসেনের উত্তরসূরি।
  • ১৩৭৬: কাশ্মীরে শাহাবুদ্দিনের মৃত্যুর পরে তাঁর ভাই কুতুবুদ্দিনের স্থলাভিষিক্ত হন।
  • ১৩৭৭: বাহমানিদের সাম্রাজ্যে মুহম্মদ শাহের মৃত্যু, তাঁর পুত্র মুজাহিদের জায়গায় এসেছিলেন।
  • ১৩৭৮: বাহমানিদের সাম্রাজ্যে মুজাহিদকে হত্যা করা হয়েছিল, তাঁর চাচা দাউদ দ্বারা সিংহাসন দখল করা হয়েছিল।
  • ১৩৭৯: কৃষ্ণ ভেড়া সাম্রাজ্যের তুর্কমেনস, বৈরাম খাজা ব্ল্যাক মেষের তুর্কিম্যানদের স্বতন্ত্র প্রধানত্ব পেয়েছিলেন এবং আর্মেনিয়ার ভ্যানে তাঁর রাজধানী প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। বাহমানিদের সাম্রাজ্যে দাউদকে হত্যা; মুহম্মদ খানের অধিগ্রহণ।
  • ১৩৮০: গোল্ডেন হর্ড সাম্রাজ্যে পাওয়ার সাইবেরিয়ার হোয়াইট হর্ডের রাজপুত্র টোকটামিশের হাতে ধরা পড়ে। আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে আমির তেমুর অক্সাস অতিক্রম করে খুরসান ও হেরাত জয় করেন। আমির তেমুর পারস্য আক্রমণ করে এবং মুজাফফারিদ এবং মাজান্দারানকে পরাধীন করে।
  • ১৩৮১: আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে, সিস্তানের সংযুক্তি, কান্ধার দখল।
  • ১৩৮৪: আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে আস্তরাবাদ, মাজান্দারান, রায় এবং সুলতানিয়াহ বিজয়। মুজাফারিদের সাম্রাজ্যে শাহ সুজার মৃত্যু, তাঁর পুত্র জয়নুল আবদিনের রাজত্ব। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবুল আব্বাস মুস্তানসির দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত হন। কৃষ্ণাঙ্গ ভেড়া সাম্রাজ্যের তুর্কিমান, বৈরাম খাজার মৃত্যু, কারা মুহাম্মদের উত্তরসূরি।
  • ১৩৮৬: আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে, আজারবাইজানের সংযুক্তি, জর্জিয়া পরাজিত হয়েছিল। গিলান ও শিরওয়ানের পরাধীনতা। ব্ল্যাক শেপ এর তুর্কোম্যানরা পরাজিত হয়েছিল। মেরিনিড সাম্রাজ্যে, মস্তানসিরের মৃত্যু, মুহাম্মদের উত্তরসূরি।
  • ১৩৮৭: মেরিনিড সাম্রাজ্যে মুহাম্মদ দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসা আবুল আব্বাসের দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত হন।
  • ১৩৮৮: আলজেরিয়ায়, দ্বিতীয় আবু হামুউর মৃত্যু, আবু তাশফিনের উত্তরসূরি। তুঘলক সাম্রাজ্যে ফিরুজ শাহ তুগলকের মৃত্যু তাঁর পিতামহ দ্বিতীয় গিয়াসউদ্দিন তুঘলুকের স্থলাভিষিক্ত হন।
  • ১৩৮৯: আবু বকর তুঘলক শাহের। ব্ল্যাক শিপ সাম্রাজ্যের টার্কোম্যানস, কারা মুহাম্মদের মৃত্যু। কারা ইউসুফের উত্তরসূরী।
  • ১৩৯০: তুঘলক সাম্রাজ্যে আবু বকর নাসিরুদ্দিন তুঘলকের দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত হন। বাংলায় সিকান্দার শাহের মৃত্যু, তাঁর পুত্র গিয়াসুদের রাজত্ব। বুর্জি মামলুকস সাম্রাজ্যে, সাইফুদ্দিন বারকুকে ঘিরে বুরজি মামলুকদের শাসন।
  • ১৩৯১: আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে, পার্সের সংযুক্তি। মুজাফারিদের সাম্রাজ্যে, আমির তেমুর দ্বারা মুজাফারিদের সংযুক্তি। গ্রানাডায়, মুহাম্মদ পঞ্চম মৃত্যুতে তাঁর পুত্র দ্বিতীয় আবু হাল্লাজ ইউসুফের উত্তরসূরি।
  • ১৩৯২: জলায়র সাম্রাজ্যে হুসেনের মৃত্যু, তাঁর পুত্র আহমদের উত্তরসূরি। গ্রানাডায়, আবু হাল্লাজের মৃত্যু; মুহম্মদ ষষ্ঠের উত্তরসূরি।
  • ১৩৯৩: আমির তেমুর গোল্ডেন হর্ডের শাসক টিকটোমিশকে পরাজিত করেছিলেন। আমির তেমুর দ্বারা জালায়ার রাজত্ব ক্যাপচার। মেরিনিড সাম্রাজ্যে আবুল আব্বাসের মৃত্যু; দ্বিতীয় আবু ফারিসের উত্তরসূরি।
  • ১৩৯৪: আমির তেমুর মস্কোর ডিউককে পরাস্ত করলেন। তুঘলক সাম্রাজ্যে নাসিরুদ্দিন তুগলকের মৃত্যু, আলাউদ্দিন সিকান্দার শাহের রাজত্ব। কাশ্মীরে কুতুবুদ্দিনের মৃত্যু। হোয়াইট শেপ সাম্রাজ্যের টার্কোম্যানস, কারা ওথম্যান দিয়েরবকরে হোয়াইট ভেড়া তুরস্কোম্যানদের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।
  • ১৩৯৫: গোল্ডেন হর্ড সাম্রাজ্যে, আমির তেমুর টোকটামিশ এবং রাজে সেরাইকে মাটিতে পরাজিত করেছিলেন। গোল্ডেন হোর্ডের শাসনের সমাপ্তি। আমির তেমুর দ্বারা ইরাকের সংযুক্তি। তুঘলক সাম্রাজ্যে সিকান্দার শাহের মৃত্যু। মুহম্মদ শাহের উত্তরণ।
  • ১৩৯৬: আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে, সেরাই ধ্বংস এবং সোনার জোড়ের শাসন। সর্বদর সাম্রাজ্যে, আমির তেমুর দ্বারা অভিজাত প্রিন্সিপাল।
  • ১৩৯৭: বাহমানিদের সাম্রাজ্যে মোহাম্মদ খানের মৃত্যু।
  • ১৩৯৮: আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে, ভারতে প্রচারণা। মেরিনিড সাম্রাজ্যে দ্বিতীয় আবু ফারিসের মৃত্যু। তুঘলক সাম্রাজ্যে আমির তৈমুরের আক্রমণে মাহমুদ শাহ রাজধানী থেকে পালিয়ে যান। মরোক্কোতে মেরিনিড সুলতান দ্বিতীয় আবু ফারিসের মৃত্যু; তাঁর পুত্র আবু সাইদ ওসমানের উত্তরসূরি।
  • ১৩৯৯: আমির তেমুরের সাম্রাজ্যে ইরাক ও সিরিয়ায় অভিযান। বুর্জী মামলুকস সাম্রাজ্যে সাইফুদ্দিন বারকুকের মৃত্যু, তাঁর ছেলে নাসিরুদ্দিনের উত্তরসূরী ফরাজ।