স্ত্রীকে ফাঁকি দিয়ে প্রেমিকা নিয়ে ইতালি ভ্রমণ, করোনায় আক্রান্ত যুবক

 

স্ত্রীর কাছে গোপন রেখে প্রেমিকাকে নিয়ে ইতালি ভ্রমণে গিয়েছিলেন এক ব্রিটিশ যুবক। আর সেখানে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে। ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদপ্রতিদিনের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

৩০ বছর বয়সী ওই যুবক বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। তবে কীভাবে তার দেহে কোভিড-১৯ রোগ সংক্রমিত হয়েছে, স্ত্রী এখনো তা জানতে পারেননি।

স্ত্রীকে তিনি বলেছেন, ব্যবসায়িক কাজে তিনি ব্রিটেনের কোনো এক অঞ্চলে গিয়েছিলেন।

শরীরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেয়ার পরেই আতঙ্কিত হয়ে ওঠেন ওই ব্যক্তি। ইংল্যান্ডের জনস্বাস্থ্য সংযোগকারীকে গোটা ঘটনা খুলে বলেন তিনি।

ওই যুবকের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে। তিনি সংক্রমণমুক্ত হয়ে যাবেন বলেই আশা। কিন্তু করোনার আতঙ্কের মধ্যেও তিনি বেশি চিন্তিত পরকীয়া সম্পর্ক নিয়ে।

গোটা ঘটনা স্ত্রী জানতে পারলে, জল কোন দিকে গড়াবে, তা আন্দাজ করেই প্রতিনিয়ত ভয় পাচ্ছেন তিনি।

এদিকে করোনাভাইরাসে ইউরোপের দেশ ইতালিকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। দেশটিতে প্রতি দুই মিনিটে একজন করে রোগী মারা যাচ্ছেন।

শনিবার কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্তে হয়ে ৭৯৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার ভয়াবহ দৃষ্টান্ত হচ্ছে এই সংখ্যা।

এতে গড়ে প্রতি ঘণ্টায় ৩৩ জনের মৃত্যু হচ্ছে। ব্রিটিশ ডেইলি মিররের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

ইতালিতে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত চার হাজার ৮২৫ রোগী মারা গেছেন। গত বছরের শেষ দিনে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে এই ভাইরাসের উদ্ভব ঘটে।

ইতালিতে শনিবার পর্যন্ত সর্বমোট ৫৩ হাজার ৫৭৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। শুক্রবারে যে সংখ্যাটা ছিল ৪৭ হাজার ২১ জন।

দেশটিতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে লম্বার্ডি অঞ্চলে। সেখানে কোয়ারেন্টিনের পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করতে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

লম্বার্ডিতে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ২৫ হাজার ৫১৫ জন, তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে তিন হাজার ৯৫ জনের।

আরো পড়তে পারেন:  করোনাভাইরাস দ্বিতীয়বার হতে পারে না, দাবি গবেষকদের

 

সূত্র: যুগান্তর

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

 আরো পড়তে পারেন:  

Loading...
আরো পড়তে পারেন:  ৮ জানুয়ারি: টিভিতে আজকের খেলা সূচি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *