সরকারি বেসরকারি পাটকলের মজুরী বৈষম্য সংকট সৃষ্টি করছে , বলেছেন বিজেএমসি চেয়ারম্যান

 

বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন (বিজেএমসি) চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ নাছিম বলেছেন, পাটশিল্প বাংলাদেশের শিল্পায়নের সূচনাকারী শিল্প। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু পাটশিল্পকে এগিয়ে নিতে একে জাতীয়করণ করেন। বর্তমানে সরকারি পাটকল গুলোর লোকসানের একটি কারণ হলো মজুরি কাঠামো। (ইনডিপেন্ডেন্ট টিভি)

ইনডিপেন্ডেন্ট টিভির ‘আজকের বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানে বুধবার তিনি বলেন, সরকারি জুটমিলগুলোর স্থায়ী শ্রমিকদের সরকার ঘোষিত মজুরি স্কেল অনুযায়ী বেতন দেয়ার আইনগত বাধ্যবাধকতা রয়েছে। বেসরকারি জুটমিলগুলোর জন্য শ্রম ও র্কমসংস্থান মন্ত্রনালয় থেকে আলাদা মজুরি স্কেল করে দেয়া রয়েছে। এখানে একটা বৈষম্য কাজ করছে। সরকারি পাট কলের শ্রমিকদের মজুরি থেকে বেসরকারি পাট কলের শ্রমিকদের মজুরি প্রায় অর্ধেক। যা পরর্বতীতে সরকারি পাটকলের উৎপাদন খরচকে অনেকাংশে বাড়িয়ে দিচ্ছে। এছাড়াও ব্যবস্থাপনাসহ অন্যান্য কারণে সরকারি পাটকলগুলো লোকসানের মুখে।

তিনি বলেন, নানা কারণে আমাদের ৮২টি পাটকল থেকে মাত্র ২২টি চালু রয়েছে। এই পাটগুলোকে টিকিয়ে রেখে পাট শিল্পকে আবার জাগিয়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে বিজেএমসি। আমাদের কাছে প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনা রয়েছে। আমরা আমাদের অব্যবহৃত জমি কাজে লাগানোর জন্য বিজেএমসি অর্থনৈতিক জোন করার চিন্তা ভাবনা করছি। এছাড়াও পাবলিক প্রাইভেট পার্টনাশীপের মাধ্যমে কাজ করার পরিকল্পনাও আমাদের রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মজুরী নিয়ে যে অসন্তোষ রয়েছে সেখানে শ্রমিকদের বলব, আমাদের শ্রমিকদের পে-ফিকসেশন কাজ ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। বিজিএমইএ সেই পে-ফিকসেশন নিয়ে সরকারের সাথে বসবে। সরকারের সার্পোট নিয়েই শ্রমিক অসন্তোষ দূর করা হবে।

সূত্র: দৈনিক আমাদের সময়

দেশের আরো প্রতি মূর্হর্তের খবর জানুন এখানে

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *