যশোরে আলোচিত মেহেবুবুল রহমান ম্যানসেলকে তিন সহযোগীসহ আটক

 যশোরে  আলোচিত মেহেবুবুল রহমান ম্যানসেলকে তিন সহযোগীসহ আটক করেছে পুলিশ। মামলা প্রত্যাহার করতে হুমকি ধামকি দেয়ার অভিযোগে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটকরা হলেন, ষষ্ঠীতলা সুরেন্দ্রনাথ সড়কের ফরহাদুর রহমান আলমাসের ছেলে মেহেবুবুল রহমান ম্যানসেল , নাজির শংকরপুরের আলমগীর হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে অভি রহমান , রেলগেট পশ্চিম পাড়ার নুর ইসলামের ছেলে আসাদুজ্জামান  ও ষষ্ঠীতলা পাড়ার মো. আনছারের ছেলে মিজান। বুধবার দুপুরে মুজিব সড়ক সংলগ্ন ষষ্ঠীতলাস্থ প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র থেকে তাদের আটক করা হয়।

পুলিশ জানায়, ২০২৩ সালের ৫ মার্চ ম্যানসেল ও তার সহযোগীরা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রে ঢুকে কর্মকর্তা মুনা আফরিনকে মারধর ও সরকারি কাজে বাধা প্রদান করেন। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় মামলা করেন মুনা আফরিন। এই মামলা প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য মুনা আফরিনকে হুমকি দিয়ে আসছিলেন আসামিরা। গত ১২ ফেব্রুয়ারি ফের মুনা আফরিনকে হুমকি দেওয়া হয়। বুধবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ম্যানসেল ও তার সহযোগীরা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রে ঢুকে মুনা আফরিনকে গালিগালাজ এবং মামলা অ্যাফিডেফিট করে দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন। এছাড়া দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। তখন মুনা আফরিন বিষয়টি পুলিশকে জানান। পরে পুলিশ ম্যানসেলসহ ৪ জনকে হাতেনাতে আটক করেন। এ সময় তাদের কাছ থেকে নন জুডিসিয়াল স্ট্যাম্প ১শ’ টাকা মূল্যের ১টি এবং ৫০ টাকা মূল্যের ১টি জব্দ করা হয়।

কোতয়ালি থানা পুলিশের ওসি মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, মামলা দায়েরের পর আসামিদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

যশোরে আলোচিত মেহেবুবুল রহমান ম্যানসেলকে তিন সহযোগীসহ আটক 

যশোর প্রতিনিধি যশোরে  আলোচিত মেহেবুবুল রহমান ম্যানসেলকে তিন সহযোগীসহ আটক করেছে পুলিশ। মামলা প্রত্যাহার করতে হুমকি ধামকি দেয়ার অভিযোগে তাদেরকে আটক করা হয়।

আরো পড়তে পারেন:  সোমালি জলদস্যু কারা এবং কীভাবে তাদের উত্থান?

আটকরা হলেন, ষষ্ঠীতলা সুরেন্দ্রনাথ সড়কের ফরহাদুর রহমান আলমাসের ছেলে মেহেবুবুল রহমান ম্যানসেল , নাজির শংকরপুরের আলমগীর হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে অভি রহমান , রেলগেট পশ্চিম পাড়ার নুর ইসলামের ছেলে আসাদুজ্জামান  ও ষষ্ঠীতলা পাড়ার মো. আনছারের ছেলে মিজান। বুধবার দুপুরে মুজিব সড়ক সংলগ্ন ষষ্ঠীতলাস্থ প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র থেকে তাদের আটক করা হয়।

পুলিশ জানায়, ২০২৩ সালের ৫ মার্চ ম্যানসেল ও তার সহযোগীরা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রে ঢুকে কর্মকর্তা মুনা আফরিনকে মারধর ও সরকারি কাজে বাধা প্রদান করেন। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় মামলা করেন মুনা আফরিন। এই মামলা প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য মুনা আফরিনকে হুমকি দিয়ে আসছিলেন আসামিরা। গত ১২ ফেব্রুয়ারি ফের মুনা আফরিনকে হুমকি দেওয়া হয়। বুধবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ম্যানসেল ও তার সহযোগীরা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রে ঢুকে মুনা আফরিনকে গালিগালাজ এবং মামলা অ্যাফিডেফিট করে দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন। এছাড়া দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। তখন মুনা আফরিন বিষয়টি পুলিশকে জানান। পরে পুলিশ ম্যানসেলসহ ৪ জনকে হাতেনাতে আটক করেন। এ সময় তাদের কাছ থেকে নন জুডিসিয়াল স্ট্যাম্প ১শ’ টাকা মূল্যের ১টি এবং ৫০ টাকা মূল্যের ১টি জব্দ করা হয়।

কোতয়ালি থানা পুলিশের ওসি মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, মামলা দায়েরের পর আসামিদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Source link

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

 আরো পড়তে পারেন:  

Loading...
আরো পড়তে পারেন:  কিডনি বা ফুসফুস সুস্থ আছে কিনা পরীক্ষা করুন চামচ দিয়েই!