মিয়ানমারকে জাতিসংঘ দূতের কঠোর হুঁশিয়ারি, রেললাইন বন্ধ করল বিক্ষোভকারীরা

মিয়ানমারে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে জনগণের প্রতিবাদ ক্রমে অধিক গতিশীলতা লাভ করছে। সামরিক অভ্যুত্থান বিরোধী বিক্ষোভকারীরা ইয়াঙ্গুন ও দক্ষিণাঞ্চলীয় একটি শহরের রেল লাইন বন্ধ করে দিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার জাতিসংঘ দূতের ভয়াবহ পরিণতির বিষয়ে সেনাবাহিনীকে সতর্ক করার কয়েক ঘণ্টার পর রেল লাইন অবরোধ করা হয়। রাস্তায় সাঁজোয়া যান ও সেনাদের উপস্থিতি থাকলেও বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিবাদকারীরা। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে দেশটির বিভিন্ন শহর ও নগরে বিক্ষোভ, অসহযোগিতা ও ধর্মঘটে সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রম থমকে গেছে। বিক্ষোভকারীরা প্ল্যাকার্ড হাতে অসহযোগ আন্দোলনের সমর্থনে ইয়াঙ্গুন ও দক্ষিনাঞ্চলীয় শহর মাউলামিনের রেল লাইনে অবস্থান নেয়। এতে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এসময় বিক্ষোভকারী স্লোগান দেয়, অবিলম্বে আমাদের মুক্তি দাও, জনগণের ক্ষমতা ফিরিয়ে দাও।

ইয়াঙ্গুনের আরও দুটি স্থানেও বিক্ষোভকারীরা জড়ো হয়। একটি হলো চিরাচরিত বিক্ষোভের স্থান বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের পাশে, আরেকটি হলো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে। দ্বিতীয় স্থানে বিক্ষোভকারী অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দিতে ব্যাংক কর্মীদের আহ্বান জানায়।

প্রায় ৩০ জন বৌদ্ধ ভিক্ষু অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে প্রার্থনার মাধ্যমে। গত কয়েক দিনের তুলনায় সোম ও মঙ্গলবার বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারীদের সংখ্যা ছিল কম। তবে দেশব্যাপী ছোট ছোট বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

উল্লেখযোগ্য যে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী সর্বশেষ নির্বাচনে অনিয়ম হওয়ার অভিযোগ তুলে দেশের শাসন দখল করে। নির্বাচনে কমিশন কারচুপির অভিযোগ উড়িয়ে দিলেও একেই অজুহাত হিসেবে ব্যবহার করে ১ ফেব্রুয়ারি ভোরে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে সেনাবাহিনী।  সূত্র: ইনকিলাব

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

 আরো পড়তে পারেন:  

DSA should be abolished
/ জাতীয়, সব খবর
Loading...
আরো পড়তে পারেন:  যে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে ম্যাট্রিক ফেল বাধ্যতামূলক!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *