ড. ইউনূসের পক্ষে বিশ্বনেতাদের বিবৃতি, অবস্থান জানাল সরকার

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনসহ ১৬০ জন বিশ্বনেতা এবং নোবেলজয়ীর ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিচার প্রক্রিয়া স্থগিতের বিবৃতির বিপরীতে নিজেদের অবস্থান জানিয়েছে সরকার। শুক্রবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

সেখানে বলা হয়, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ একদল আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্ব এবং কিছু বাংলাদেশি নাগরিক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে চলমান বিচারিক কার্যক্রমের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন যা বাংলাদেশ সরকারের নজরে এসেছে। খোলা চিঠিটিতে সুস্পষ্টভাবে তথ্যের সুস্পষ্ট ফাঁক আছে এবং এটি বাংলাদেশের স্বাধীন বিচার ব্যবস্থার অবমাননা। এটি সরকারের কাছে বিস্ময়কর- চিঠিতে স্বাক্ষরকারীরা ইতিমধ্যেই সাব-জুডিস মামলার যোগ্যতা এবং বিচারিক কার্যক্রমের ফলাফল সম্পর্কে তাদের নিজস্ব সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন।

সেখানে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বাংলাদেশ দণ্ডবিধি এবং মানি লন্ডারিংবিরোধী আইন, ২০১২-এর সুনির্দিষ্ট বিধানের অধীনে এই মামলা দায়ের করেছে। গ্রামীণ টেলিকম লিমিটেডের শ্রমিক ও কর্মচারীদের লভ্যাংশের অপব্যবহার সংক্রান্ত অভিযোগের তদন্তের ভিত্তিতে মামলাটি দায়ের করা হয়েছিল। দুদকের তদন্ত দল দেখতে পেয়েছে যে, গ্রামীণ টেলিকম লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং অন্যান্য বোর্ড সদস্যদের সঙ্গে বন্দোবস্ত চুক্তি জাল করে ২৫২ মিলিয়ন ডলার অপব্যবহার এবং অবৈধভাবে টাকা হস্তান্তর করেছে।

আরও বলা হয়, অন্যদিকে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর, ঢাকা বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬ এর অধীনে একটি মামলা দায়ের করে। একাধিক লঙ্ঘনের জন্য মামলাটি দায়ের করা হয়েছিল। যার মধ্যে রয়েছে শ্রমিক অবদান তহবিল ও কল্যাণ তহবিল গঠন না করা এবং সংশ্লিষ্ট শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিলে নিট লাভের ৫% ভাগ লভ্যাংশ ২০০৬ সাল থেকে না দেওয়া। আবার একটি কর ফাঁকির মামলায় ড. মুহাম্মদ ইউনূস সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে হেরে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের আপিল বিভাগে আবেদন করেন। হাইকোর্ট বিভাগের আদেশে আপিল বিভাগ কোনো দুর্বলতা খুঁজে না পেয়ে আবেদনটি খারিজ করে দেয়, যার ফলে ড. ইউনুস জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) বকেয়া কর পরিশোধ করেন। তার বিরুদ্ধে কর ফাঁকির আরও কয়েকটি মামলা রয়েছে।

আরো পড়তে পারেন:  তিন বিভাগে বৃষ্টি ও তাপমাত্রা বাড়ার আভাস

শ্রমিকদের তাদের ন্যায্য লাভ থেকে বঞ্চিত করার মামলায় ড. মুহাম্মদ ইউনূস দুই দফায় সর্বোচ্চ আদালতে গিয়েছিলেন, একটি রক্ষণাবেক্ষণকে চ্যালেঞ্জ করে এবং আরেকটি ট্রায়াল কোর্ট কর্তৃক অভিযোগ গঠনকে চ্যালেঞ্জ করে। তার আইনজীবীদের শুনানি করে সর্বোচ্চ আদালত প্রথম মামলাটি সঠিকভাবে শুরু হয়েছে বলে নিশ্চিত করে রায় দেন এবং অন্যটিতে অভিযোগ গঠনকে আইনি ও সঠিক বলে ঘোষণা করেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, এটি দুঃখজনক- চিঠিতে স্বাক্ষরকারীরা সাব-জুডিস মামলাগুলি স্থগিত করার জন্য  প্রধানমন্ত্রীকে বিচার বহির্ভূত কর্তৃত্ব প্রয়োগ করার জন্য অনুরোধ করেছে। তারা ডক্টর মুহাম্মদ ইউনূস এবং তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পর্যালোচনার একটি বিকল্প প্রক্রিয়ার সুপারিশ করেছে যেটি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত বিচার ব্যবস্থার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

সেখানে আরও বলা হয়, ড. মুহাম্মদ ইউনূস এবং তার সহযোগীরা তাদের অভিযুক্ত বা প্রমাণিত আইন লঙ্ঘনের জন্য আন্তর্জাতিক লবিংয়ের আশ্রয় নেওয়া এই প্রথমবার নয়। গ্রামীণ ব্যাংক সার্ভিস রুলস, ১৯৯৩ অনুযায়ী নির্ধারিত অবসরের বয়স অতিক্রম করলেও গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসাবে তার চুক্তি বাতিল করার প্রসঙ্গে সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করার সিদ্ধান্ত ছিল তার।

আরও বলা হয়, দেশের আইনের ঊর্ধ্বে নিজেকে ভেবে নিয়ে একটি সার্বভৌম দেশের নাগরিক হিসেবে বারবার বহিরাগত হস্তক্ষেপ চাওয়াটা অগ্রহণযোগ্য। বাংলাদেশের জনগণের কাছে এটি এখন স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে, কর্পোরেট এবং আয়কর ফাঁকি দিয়ে এবং বছরের পর বছর ধরে কর্মীদের বঞ্চিত করে ড. মুহাম্মদ ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের বেতনভোগী কর্মচারী- বাণিজ্যিক উদ্যোগে কথিতভাবে অপব্যবহার করেছেন। এবং পাচারকৃত অর্থের একটি বড় অংশ বিনিয়োগ করেছিলেন।

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

 আরো পড়তে পারেন:  

Loading...
আরো পড়তে পারেন:  স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করবে যে সবজি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *