জাতীয় নেতাকে সম্মান দেখিয়ে নির্ধারিত দিনে পালিত হয়নি খালেদা জিয়ার জন্মদিন, বললেন আলাল

 

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে জন্মদিন নিয়ে বির্তকের অবসান চেয়েছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সংসদ নেতা হিসেবে তিনি আহবান জানিয়েছিলেন, শেখ মুজিবুর রহমান ও জিয়াউর রহমানকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা দিয়ে এ বির্তকের অবসান ঘটাতে।

তিনি আরো বলেন, ১৯৯১ থেকে ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল নিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত করেছেন খালেদা জিয়া। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত করেছেন।

আলাল বলেন, ‘বির্তকটা আমরা শেষ করতে চেয়েছি অনেক আগে থেকেই, এটা নতুন নয়। ২০১৫ সালে চেয়ারপারসন নিজেই এ বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছিলেন। এরপরও কিছু কিছু নেতাকর্মীদের আবেগের দিকে তাকিয়ে পারা যায়নি। পরে আমরা ২০১৬, ১৭, ১৮ সাল ও চলতি বছরে আমরা ১৫ আগস্ট চেয়ারপারসনের জন্মদিন পালন করছি না।’

‘বির্তক রাজনীতিতে থাকবেই। প্রতিপক্ষের ত্রুটি খোঁজার চেষ্টা করলে আমরা যেমন পাবো, তারাও আমাদেরটা পাবেন। আমি মনে করি, এটা জাতীয় নেতা হিসেবে আরেকজন জাতীয় নেতাকে সম্মান প্রদর্শন করা ।

সূত্র: আমাদের সময়

দেশের আরো প্রতি মূর্হর্তের খবর জানুন এখানে

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *