কুমিল্লায় প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে তৈরি বাড়ি নিয়ে তোলপাড়!

 

কুমিল্লার বরুড়ার ডিমডুল গ্রামের আরিফুর রহমান প্লাষ্টিকের পরিত্যাক্ত বোতল দিয়ে বাড়ি নির্মান করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। প্রতিদিন শতশত মানুষ ভীড় জমাচ্ছেন প্লাষ্টিকের তৈরি নির্মিত বাড়িটি দেখার জন্য।

গত অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে ৫জন শ্রমিক দিয়ে কাজ শুরু করে নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে কাজ শেষ করেন।প্রায় দেড় মাস সময়ের মধ্য শেষ হয় প্লাষ্টিকের বোতলের তৈরীর বাড়ির কাজ।

বাকী আছে শুধু ছাদের কাজ টুকু। ছাদ হবে টিনের। দরজা -জানালা হবে যথাক্রমে স্ট্রিল ও কাঠের। প্রায় ৫০ হাজার পরিত্যাক্ত প্লাষ্টিকের বোতল দিয়ে নির্মিত বাড়িটি দুটি শয়ন কক্ষ, একটি চৌচাগার, একটি রান্নাঘরের ৯০ভাগ কাজ প্রায় শেষ।

রাজমিস্ত্রি রাজন বলেন, বাড়িটি নির্মান করতে প্লাষ্টিকের বোতলের ভিতর বালি ভরে দেওয়াল বা প্রাচীরে গাঁথা হচ্ছে বালি মিশ্রিক সিমেন্ট দিয়ে। লিনটার ও পিলারে ব্যাবহৃত হয়েছে ইট,সিমেন্ট ও রড।

বোতলের তৈরির বাড়ি বানানোর উদ্যেক্তা আরিফুল ইসলামের বাবা অহিদুল ইসলাম বলেন, ”ছেলে একদিন আমাকে বললো আমি প্লাষ্টিকের বোতল দিয়ে বাড়ি বানাবো।

উত্তরে আমি বললাম সমস্যা কি বানাও। আমি তাকে বিভিন্ন জায়গা থেকে বোতল সংগ্রহ করে দেই। সে অনুপাতে বাড়ি বানানোর কাজ শুরু করে। আল্লাহর রহমতে আমি অনেক খুশি। প্রতিদিন অনেক মানুষ আমার ছেলের নির্মান করা বাড়ি দেখতে আসে”।

উদ্যেক্তা আরিফুল ইসলাম বলেন, ”প্রথমে মন খারাপ হলেও এখন আমি অনেক খুশি। আমার স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে পেরে। আমি অনেক ভেবেছি প্লাষ্টিকের বোতল পরিবেশের অনেক ক্ষতি করে তা দিয়ে কিছু করলে যেমন পরিবেশের উপকার হবে তেমনি কমবে ইটের উপড় চাহিদা।

যেই ভাবা সেই কাজ শুরু করে দিলাম। আর স্বপ্নকে আজ বাস্তবে রূপ দিলাম।। আশা করি আমার দেখা দেখিতে আমাদের দেশের তরুনরা ইটের উপড় চাপ কমিয়ে প্লাষ্টিকের বোতল দিয়ে বাড়ি বানাবে।

তাতে কমপক্ষে পরিবেশের উপকার হবে। একদিকে যেমন পরিবেশের ক্ষতিকর ইটভাটার উপড় নির্ভরশীলতা কমবে অপরদিকে প্লাষ্টিকের বোতল ব্যাবহারের ফলে পরিত্যাক্ত বোতলের ফলে যে ক্ষতি হবার সম্ভাবনা ছিল সেটাও কমবে”।

প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, ”ইটের তৈরি বাড়ি থেকে চারগুন বেশি শক্তিশালী হয় বোতলের তৈরি বাড়ি। ৮.১ মাত্রা ভূমিকম্পতে যেখানে সাধারন ইটের বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হলেও এই বাড়িতে তেমন কোন ক্ষতি হয় না। তাছাড়া এই বাড়িটি আগুনেও বড় ধরনের ক্ষতি হবে না। এই বাড়িতে শীতে গরম আর গরমে ঠান্ডা অনুভব হবে“।

সূত্র: কুমিল্লার বার্তা

দেশের আরো প্রতি মূর্হর্তের খবর জানুন এখানে

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *