করোনা প্রতিরোধে বাজারের সময় যা করবেন

 

করোনার এই সময়ে বাজার করতে যেতে হয় সবারই। ওষুধ ও পণ্যদ্রব্য কিনতে বাড়ির বাইরে বের হতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। বাজার করার আগে ও পরে কি কি করণীয় সেই বিষয়ে একটি লেখা ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। জেনে নিন সেই টিপসগুলো-

বাজার করতে যাওয়ার সময় যা করবেন

বাজার করতে যাওয়ার সময় অবশ্যই মাস্ক পরবেন। সঠিকভাবে ও মানসম্মত মাস্ক পরবেন। চশমা অথবা সানগ্লাস পরা উত্তম। সম্ভব হলে হাত গ্লাভসও পরতে পারেন।

বাজার বাসায় আনার পর যা করবেন

বাসায় বাজার আনার পর তা এমন জায়গাই প্রথমে রাখতে হবে যেন সেই জায়গাকে সাবান দিয়ে মুছা বা ধুয়া যায়। বাজারকারীর কাপড় ও জুতা এমন স্থানে খুলে রাখতে হবে যাতে তা বাসায় পরার কাপড়ের সংস্পর্শে না আসে। পারলে সাথে সাথে কাপড় সাবান পানিতে ৫মিনিট ডুবিয়ে রেখে কেচে নিতে হবে। এরপর বাজারকারীকে সাথে সাথে গোসল করতে হবে।

বাজার গোছানোর সময় যা করবেন

বাজার দুই ধরনের। যেমন, অপচনশীল (যা সাত দিন ফ্রিজের বাহিরে রাখলে পচে না। যেমন, আলু,পেঁয়াজ, চাল, আটা, বিস্কুট ইত্যাদি)। আর একটি হলো পচনশীল (যা ফ্রিজের বাহিরে রাখলে সাত দিনের আগেই পচে যায়। যেমন, মাছ, মাংস, তরকারি ইত্যাদি)।

অপচনশীল বাজার গোছানোর ক্ষেত্রে যা করতে হবে: অপচনশীল বাজারগুলাকে আলাদা করে সাত দিনের জন্য এমন স্থানে রাখতে হবে যাতে তা কেউ সাত দিনের আগে স্পর্শ বা ব্যবহার না করে।

পচনশীল বাজারর ক্ষেত্রে যা করতে হবে: পচনশীল বাজার আবার দুই ধরনের। যেমন, চোকাযুক্ত বা প্যাকেট যুক্ত। এর মধ্যে থাকতে পারে তরল দুধের প্যাকেট, বাটার, শসা, লাউ, পটল, কলা, কমলা, আপেল ইত্যাদি রয়েছে। আর একটি হলো চোকা ছাড়া। যেমন, মাছ, মাংস, শাক, মিষ্টি ইত্যাদি। চোকা বা প্যাকেট মুক্ত বাজারকে প্রথমে ২০ সেকেন্ড সাবান পানিতে ডুবিয়ে রাখার পরে তা পানিতে ধুয়ে সাবান মুক্ত করতে হবে। এরপর তা মুছে বা শুকিয়ে ফ্রিজে রাখতে হবে। পাউরুটির মতো পাতলা প্যাকেটযুক্ত জিনিস যা সাবান-পানিতে ডুবানো যায় না; তাকে সাবান পানিতে ভেজা কাপড় দিয়ে প্যাকেটের ওপর ভালোভাবে মুছে প্যাকেটটি ছিঁড়ে পাউরুটি পরিষ্কার পাত্রে নিয়ে নিতে হবে।

আরো পড়তে পারেন:  খাঁচায় চার বছরের শিশু, গরিলাকে গুলি করে হত্যা

মাছ, মাংস, শাক ইত্যাদি চোকা ছাড়া বাজারকে প্রথমে বড় বালতির মধ্যে ঠান্ডা পানিতে ২ থেকে ৩ মিনিট ডুবিয়ে রাখার পর পানির মধ্যে নেড়ে-চেড়ে ভালোভাবে ধুতে হবে যাতে পানি না ছিটে। এতে এগুলা পরিষ্কার হবে কিন্তু করোনাভাইরাস মুক্ত হবে না। এরপর এগুলাকে সাবধানে সরাসরি রান্নার পাত্রে নিয়ে রান্না করতে হবে। আর রান্ন না করলে খুব অল্প পানি দিয়ে দুই মিনিট ফুটিয়ে ঠান্ডা করে ফ্রিজে রাখতে হবে।

মনে রাখতে হবে, করোনা জীবাণুযুক্ত কোনো কিছু ফ্রিজের আইস চেম্বারে রাখলে জীবাণু দুই বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। তাই কোনো অবস্থাতেই কোনো কিছু সাবান দিয়ে না ধুয়ে বা না ফুটিয়ে ফ্রিজে রাখা যাবে না। কাপড়ের বাজারের ব্যাগ সাবান পানিতে ৫ মিনিট ডুবিয়ে রেখে নিতে হবে অথবা শুকনো অবস্থায় ৭ দিন ব্যবহার না করার জন্য রেখে দিতে হবে। পলিথিন ও ময়লা এমন জায়গাতে ফেলতে হবে যাতে কুকুর, কাক; এগুলোকে মুখে করে প্রতিবেশীদের বাড়ি নিয়ে না যায়। কারণ প্রতিবেশীর করোনা হলে নিজেদের করোনা হওয়ার সম্ভাবনা বহুগুণ বেড়ে যাবে।

লিখেছেন সো. হাসিন রেজা সিদ্দীক।
প্রকৌশলী ও প্রভাষক
স্নাতকোত্তর: ক্যান্সার সেল (এমসিএফ) ডিটেক্সন।

 

সূত্র: কালেরকণ্ঠ

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

 আরো পড়তে পারেন:  

Loading...
আরো পড়তে পারেন:  ২৮ নভেম্বর: ইতিহাসে আজকের এই দিনে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *