করোনার প্রণোদনা বিলে সই না করায় ট্রাম্পকে হুশিয়ারি বাইডেনের

করোনার প্রণোদনা বিলে সই করা নিয়ে তালবাহানা শুরু করায় এবার বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হুশিয়ার করেছেন নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

করোনা মহামারী মোকাবেলায় কংগ্রেসে পাস হওয়া ৯০ হাজার কোটি ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজে সই করতে শনিবার ট্রাম্পকে জরুরি ভিত্তিতে আহ্বান জানিয়েছেন বাইডেন। খবর আলজাজিরা ও পলিটিকোর।

করোনা মহামারীতে বর্ধিত প্যাকেজটিতে স্বাক্ষরে বিলম্ব হলে পরিণতি ভয়াবহ হবে বলে ট্রাম্পকে সতর্ক করেছেন তিনি।

শনিবার এক বিবৃতিতে বাইডেন বলছেন, দায়িত্বের প্রতি চরম অবহেলা করছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। যদিও এই বিল নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা রয়েছে। কিন্তু এখন ছাড় দেয়া খুবই প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।

বাইডেন আরও বলেন, বিলটিতে শিগগিরই সই না করলে লাখ লাখ মার্কিনি বেকার ভাতার মেয়াদ এবং বেকার ভাতা থেকে বঞ্চিত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়বেন।

দেশটির শ্রম বিভাগের তথ্যমতে, ট্রাম্পের বর্তমান অবস্থানের কারণে এক কোটি ৪০ লাখ মার্কিন নাগরিক তাদের প্রত্যাশিত বেকার ভাতা থেকে বঞ্চিত হতে চলেছেন। সংকট না কাটলে সরকারের কিছু অংশ তাদের নিয়মিত কাজ বন্ধ করে দিতে পারেন বলেও শঙ্কা করা হচ্ছে।

মার্কিন কংগ্রেসে সম্প্রতি পাস হওয়া বিলকে ‘অপব্যয়’ হিসেবে আখ্যায়িত করলেও প্রত্যেক মার্কিনির জন্য মাথাপিছু বরাদ্দের হার বাড়ানোর জন্য ট্রাম্প কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, বিলের নাম দেয়া হয়েছে কোভিড রিলিফ বিল, কিন্তু কোভিডের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্কই নেই। তার মতে এই বিল সংস্কার করতে হবে। জনপ্রতি ৬০০ ডলার থেকে বাড়িয়ে দুই হাজার ডলার বা দম্পতিদের জন্য চার হাজার ডলার করা।

একটি উপযুক্ত বিল তৈরি করে তার কাছে পাঠানোর কথাও জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তবে বিলে এখন পর্যন্ত সই না করায় সংকট আরও ঘনীভূত হচ্ছে। অনেকে বিলটি ছাড় দেয়ার কথা বললেও নিজের অবস্থানে অনড় ট্রাম্প।

সূত্র: যুগান্তর

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

 আরো পড়তে পারেন:  

আরো পড়তে পারেন:  লাল-হলুদের ফাঁদে পড়ে কিটের সংকট!
কাদের মির্জাকে নিক্সন চৌধুরী : এমন গণধোলাই খাবেন চেহারা চেনা যাবে না
/ জাতীয়, সব খবর
Loading...
আরো পড়তে পারেন:  ভোটারদের হুমকি দিয়ে ইরানের মেইলে যুক্তরাষ্ট্রে আতঙ্ক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *