কবরস্থানেও অন্তরঙ্গ তরুণ-তরুণীরা!

 

আজিমপুর কবরস্থান। রাজধানী ঢাকার বাসিন্দাদের চিরনিদ্রালয়। এছাড়াও মুসলমানদের পবিত্র স্থান। আর এই পবিত্রস্থানে তরুণ-তরুণীদের অবাধ বিচরণে বিব্রত নগরবাসী।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমনই কিছু ছবি ছড়িয়ে পড়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে কয়েকজন তরুণ-তরুণী কবরস্থানে প্রবেশ করেছেন। কেউ কেউ আবার সেখানেই ঘনিষ্ঠতায় জড়িয়েছেন।

নেটিজেনদের অভিমত, ছড়িয়ে পড়া ছবিতে তরুণ-তরুণীদের ‘আপত্তিকর’ অবস্থায় দেখা যায়। ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে এইসব ছবি পোস্ট করে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী একজন বলছেন, কবরস্থানে নিশ্চই নিরাপত্তার জন্য লোক নিযুক্ত রয়েছে। তাহলে এরা ঢুকলো কীভাবে? আর ঢুকলেও নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা লোকজন কী করছে?

আরেকজন বলছেন, ছেলে মেয়েরা ক্রমে বোধ বুদ্ধি হারিয়ে ফেলছে। কবরস্থানের মতো একটি জায়গায় ওরা এসব করে কীভাবে?

আজিমপুর কবরস্থানে ছেলে-মেয়েদের অবাধ যাতায়াত ও ‘অপ্রীতিকর’ ছবিগুলো সামনে আসার পর সরব হয়েছেন সাধারণ মুসল্লিরা। ছবিগুলো তোলা হয়েছে কবরস্থানের পাশের কোনো ভবন থেকে। তবে কে তুলেছেন তা জানা যায়নি।

আজিমপুর কবরস্থান ঢাকা শহরে আজিমপুরে অবস্থিত একটি মুসলমান সমাধিস্থল। একে আজিমপুর কবরস্থান হিসেবেও প্রায়শ উল্লেখ করা হয়। সপ্তদশ শতাব্দীতে ঢাকা শহরের পত্তনের সময়ে এই কবরস্থানের সূচনা হয়েছিল বলে অনুমান করা হয়।

২৭ একর জমির ওপর গড়ে উঠেছে আজিমপুর কবরস্থান। এই কবরস্থানের দুটি অংশ রয়েছে যথা নতুন গোরস্থান ও আরেকটি পুরাতন গোরস্থান। পুরাতন গোরস্থানটি নতুন গোরস্থানের তুলনায় বেশ ছোট।

এখানে কতটি লাশ দাফন করা হয়েছে তার কোনো হিসাব নেই। ২০১৩ সালে এই গণনায় দেখা যায়, এখানে প্রতিদিন গড়ে ৩০-৩৫টি লাশ দাফন করা হয়। সপ্তাহে প্রায় ২০০-২৫০টি লাশ দাফন করা হচ্ছে। এখানে ব্রিটিশ আমল ও পাকিস্তান আমলের বেশ কিছু কবর সংরক্ষিত আছে।

 

সূত্র: বিডি জার্নাল

দেশের আরো প্রতি মূর্হর্তের খবর জানুন এখানে

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

আরো পড়তে পারেন:  সবাই আধুনিক আর স্মার্ট ঢাকা গড়ার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন, কিন্তু তাদের প্রচারণায় তার কোনো ছোঁয়া নেই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *