আহত নুরসহ ৫ ছাত্র শঙ্কামুক্ত: হামলার প্রতিবাদে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিক্ষোভ-সমাবেশ

আহত ভিপি নুরুল হক নুর

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ভবনে গতকালের হামলায় আহত ভিপি নুরুল হক নুরসহ ৫ জন ছাত্রের অবস্থা শঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছে মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ।

আজ সোমবার (২৩ ডিসেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে হাসপাতালের  পরিচালক জানান,    হামলার ঘটনায় আহত তুহিন ফারাবির লাইফ সাপোর্ট খুলে দেয়া হয়েছে। পরে তাকে   নিউরোলোজি  বিভাগে  স্থানান্তর করা হয়। এছাড়া  ভিপি নুরুল হক নুর সহ বাকিরা আশঙ্কামুক্ত।

গতকাল রোববার (২২ ডিসেম্বর) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরসহ তার সমর্থকদের ওপর হামলায় সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের অন্তত ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রথমে লাঠি- রড নিয়ে  হামলা শুরু করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ, পরে তাদের সঙ্গে যোগ দেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ঘটনাস্থলে সহকারী প্রক্টররা উপস্থিত থেকেও হামলা থামাতে পারেননি।

তবে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের দাবি, তারা হামলায় জড়িত নয়, সাধারণ শিক্ষার্থীরা ভিপি নুরকে প্রতিহত করেছে। অন্যদিকে ছাত্রলীগ বলছে, হামলার ঘটনায় অংশগ্রহণকারীদের ‘নিবৃত্ত করতে’ তারা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন। ঘটনার পরপরই ছাত্রলীগ নেতা এবং  ডাকসু সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানী  ঘটনাস্থলে গিয়ে  ঘোষনা করেছেন,  ভিপি  নুরকে ডাকসুতে আর ঢুকতে দেয়া হবে না।

ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের ওপর ছাত্রলীগ ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতাকর্মীদের হামলার প্রতিবাদে রোববার (২২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে মশাল মিছিল করেছে  বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ।

ইতোমধ্যে  এ হামলার নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে  বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। তাছাড়া সামাজিক মাধ্যমে শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী ও অনলাইন একক্টিভিষ্টগন তাদের নিন্দা অব্যাহত রেখেছেন।

এদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরের ওপর হামলার প্রতিবাদে আজ সোমবার সারা দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করেছে  বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

আরো পড়তে পারেন:  বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন সাবিলা নূর

গতকাল রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচির ঘোষণা কালে ডাকসুর সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক ও সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতা আখতার হোসেন বলেন, ‘ভিন্নমত দমনের জন্য সরকার তাদের পেটোয়া বাহিনী দিয়ে ডাকসু ভিপির ওপর হামলা চালিয়েছ।’  ডাকসু ভিপি নুরের ওপর হামলার বিষয়ে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ জড়িত বলে অভিযোগ করেন এই নেতা।

এর আগে ভারতে নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের প্রতিবাদ জানতে গত ১৭ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চত্তরে আয়োজিত সমাবেশে  হামলা  চালিয়েছে  মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতা কর্মীরা। সে হামলায় নুরুল হক নুর ও ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেনসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।
ভারতীয় হাইকমিশনের সেমিনার বাতিল:

এর আগে শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের একটি মিলনায়তনে ভারতে স্কলারশিপ নিয়ে দেশটির হাইকমিশনের সেমিনার আয়োজন করার  কথা  ছিল। দেশটির সাম্প্রতিক অবস্থা নিয়ে শিক্ষার্থীদের বিরোধিতার মুখে ভারতীয়  হাইকমিশন এ কর্মসুচী হাতিল করে দেয়। এর ঠিক পরের দিনই ডাকসু ভিপির ওপর হামলা চালান হয়।

 

নুর কী বলছেন:

আজ  সোমবার সকা‌লে ঢাকা মে‌ডি‌কেল ক‌লেজ হাসপাতা‌লে চি‌কিৎসাধীন অবস্থায় ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, আমাদের উপর যেভাবে হামলা করা হয়েছে তা পাকিস্তানি বর্বরতাকেও হার মানাবে।  এসময় নুর শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা দমন-পীড়ন ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে সর্বত্র ছাত্র ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, আমাদের দু’জন কর্মীকে বেধড়ক পেটানোর পর ডাকসুর ছাদ থেকে নিচে ফেলে দেয়া হয়েছে। রুম থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে মাঠের মধ্যে রড, লাঠি দিয়ে পেটানো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমার ওপর পরপর তিন দফায় হামলা চালানো হয়। গুরুতর আহত না হওয়া পর্যন্ত তারা আমাকে পেটাতে থাকে। বিরোধী মতকে দমন করতে তারা আমাদের ওপর বারবার এ হামলা চালাচ্ছে। এখন যদি ছাত্রসমাজ ঐক্যবদ্ধ না হয় তাহলে ভবিষ্যতে তারা পার পেয়ে যাবে। এখনই সময় ছাত্রসমাজকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার।

আরো পড়তে পারেন:  যেভাবে ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা থেকে রক্ষা পান মার্কিন সেনারা

একজন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের প্রতিবাদ:

এ ঘটনায় নিজের ফেসবুক পেজে একটি আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অ্যাসিটেন্ট প্রফেসর রুশাদ ফরিদি লিখেছেন,  ‘শিক্ষকতা ছেড়ে দেওয়ার সময় হয়েছে। চোখের সামনে ডাকসু ভিপি নুরু আর অন্যান্য ছাত্রদের মেরে শেষ করে ফেলা হলো। কিছুই করতে পারলাম না। নিজেদের ছাত্রদের রক্ষা করতে পারি নাই এই শিক্ষকতার কি দাম আছে? ডাকসু অফিসের দোতলায় উঠে দেখি কেউ পানি পানি বলে চিৎকার করছে। কেউ অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে।

ওরা দরজা বন্ধ করে বসেছিল। বারবার আশ্বাস দেওয়ার পরেও ভয়ে দরজা খুলছে না। বলছিল, লাইট নিভিয়ে দিয়ে লোহার রড দিয়ে এলোপাথাড়ি মারা হয়েছে। কয়েক বোতল পানি শুধু এগিয়ে দিতে পারলাম। এইটা একটা বিশ্ববিদ্যালয়? আর আমিও একজন শিক্ষক? ছিঃ ছিঃ ছিঃ’

হামলাকারী এই সময়ের রাজাকারঃ ইমরান এইচ সরকার

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডাক্তার ইমরান এইচ সরকার রবিবার রাতে নিজের  ফেসবুক স্ট্যাটাসে  লেখেন, ‘ডাকসু ভিপি নুর ও সাধারণ শিক্ষার্থী পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনসহ ছাত্রদের ওপর নারকীয় সন্ত্রাসী হামলাকারীদের চিনে রাখুন। হামলাকারী সন্ত্রাসীদের ব্যানার যাই হোক না কেন এরাই এই সময়ের রাজাকার, আল বদর, আল-শামস।

সূত্র: পার্স টুডে

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *