আরও কঠোর হচ্ছে মার্কিন অভিবাসন নীতি

 

যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন নীতিমালায় আবারও পরিবর্তন আনছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত সোমবার ট্রাম্পের নির্দেশিত এই নীতিমালায় অভিবাসনপ্রত্যাশীদের আবেদন ফি বাড়ানো ছাড়াও ওয়ার্ক পারমিট নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা রাখা হয়। এছাড়া আবেদনপত্র জমা দেওয়ার ১৮০ দিনের মধ্যে বিষয়টি সুরাহার নীতিও রাখা হয়েছে।

দেশটির হোমল্যান্ড সিকিউরিটির ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী কেভিন ম্যাকঅ্যালেন এবং অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম পি. বারের কাছে পাঠানো মেমোতে অভিবাসন সংক্রান্ত আইনে পরিবর্তন আনতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। তবে অভিবাসন নীতিমালার এই পরিবর্তন এখনই কার্যকর হচ্ছে না। ট্রাম্প তার প্রশাসনকে আগামী ৯০ দিনের মধ্যে এ সংক্রান্ত নীতিমালা চূড়ান্ত করতে বলেছেন।

ট্রাম্প প্রশাসন ইতোমধ্যেই অভিবাসীদের সংখ্যা নির্দিষ্ট রাখতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। কিন্তু এই পদক্ষেপগুলোর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা রয়েছে। মেমোতে ট্রাম্প বলেন, ‘আমাদের অভিবাসন ব্যবস্থার অপব্যবহার রোধে এবং জাতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুসংহত করাই এই স্মারকলিপির উদ্দেশ্য।’

অভিবাসন সংক্রান্ত আট লাখেরও বেশি মামলা বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে নিষ্পত্তি হয়নি। এই মামলাগুলো নিষ্পত্তি হতে কম করে হলেও দুই বছরের বেশি সময় লাগবে। এই মামলাগুলো সুরাহা হলেই অভিবাসন নিয়ে নতুন কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে ট্রাম্প প্রশাসন। তবে এক্ষেত্রে সবচেয়ে ঝামেলায় রয়েছে অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করা অভিবাসীরা। কারণ মামলার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তারা যুক্তরাষ্ট্রে কোনো কাজ করতে পারবে না।

অভিবাসীদের অধিকার এবং বিচারবিষয়ক শরণার্থী কমিশনের প্রধান মাইকেল ব্রানি বলেন, ‘অভিবাসনপ্রত্যাশীদের আমরা কাজের অনুমতি দিচ্ছি কারণ তারা যাতে নিজেদের পরিবারের দেখাশোনা করতে পারে। এ সময় যাতে তাদের সরকারের সহায়তার ওপর নির্ভর না করতে হয়।’

২০০০ সালের তুলনায় এখন যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ অভিবাসীদের প্রবেশের সংখ্যা অনেক কমেছে। এখন অধিকাংশ অভিবাসীই আসছে মধ্য আমেরিকা থেকে। গত মার্চে এক লাখ ৩ হাজারের বেশি অভিবাসী দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় সীমান্ত অতিক্রম করে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছে। অভিবাসন এবং কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট (আইসিই) দপ্তর বর্তমানে ৫০ হাজার অভিবাসীকে গৃহায়ন সুবিধা দিয়েছে। কিন্তু প্রতি মাসে যে হারে অভিবাসী প্রবেশ করছে সে হারে গৃহায়ন হচ্ছে না। এছাড়া সীমান্তবর্তী বন্দি শিবিরগুলোর অবস্থাও ক্রমশ অমানবিক হয়ে যাচ্ছে।

সূত্র: দেশ তেপান্তর

আন্তর্জাতিক প্রতি মূর্হর্তের খবর জানুন এখানে

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *