আন্দোলন করছে করুক, আন্দোলন ভালো জিনিস, বললেন প্রধানমন্ত্রী

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর করার দাবি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছর করার দাবিতে আন্দোলন হচ্ছে। এখন জন্ম নিবন্ধন হয়, বয়স লুকানো যায় না। কাজ করার সময় থাকে, এনার্জি থাকে। দাবি তোলার জন্য যদি তোলা হয়, তাহলে আমার কিছু বলার নেই। তারা আন্দোলন করছে করুক। আন্দোলন ভালো জিনিস। আন্দোলন করলে রাজনীতি শেখা যায়।’

সোমবার বিকেলে চীন সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দাবি তোলার জন্য নিশ্চয়ই কোথাও থেকে তারা প্রেরণা পাচ্ছেন। কিন্তু তার পরিণতিটা কী দাঁড়াবে? চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর করা হলে ট্রেনিং শেষে চাকরিতে ৩৭ বছর বয়সে জয়েন। কিন্তু চাকরি ২৫ বছর না হলে তো তারা ফুল পেনশন পাবে না। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের কর্মক্ষমতা কমে যায়। যারা যুবক যারা মেধাবী কর্মক্ষমতা ভালো তাদের দিয়েই তো কাজ করাতে হবে। তাদের দাবির বিষয়টি দেশবাসী বিচার করুক ।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এক সময় ছিল প্রাচ্যের অক্সফোর্ড। আমি নিজেও ঢাবির ছাত্রী। এর একটা ঐতিহ্য ছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে অস্ত্রের ঝনঝনানি ছাড়া কিছু ছিল না। একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে এতো বেশি ছাত্র-ছাত্রী। একটা ক্লাসে কতোজন বসতে পারে? সিট সংখ্যা ৪৫-৫০। সেখানে ৬০ জন বসতে পারতো। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমরা প্রতিটি জেলায় জেলায় বহুমুখী বিশ্ববিদ্যালয় করে দিচ্ছি। আমরা ক্ষমতায় আসার পরে দেখলাম, কেউ বিজ্ঞান পড়ে না। ১২টি করে দিয়েছি। বিশ্বটাই হয়ে গেছে প্রতিযোগিতামূলক। বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই সুনাম আবার ফিরিয়ে আনতে হবে।’

সূত্র: আমাদের সময়

দেশের আরো প্রতি মূর্হর্তের খবর জানুন এখানে

এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে ফেইসবুক পেজটি লাইক দিন এবং এই রকম আরো খবরের এলার্ট পেতে থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *